Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৭ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

আশা মিটল না, একই রেটিং এসঅ্যান্ডপি-র

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ২৫ নভেম্বর ২০১৭ ০৩:৪০

মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে অনেকটাই বদলে গেল ছবিটা। মুডি’জ রেটিং বাড়ানোর পরে দিল্লির দরবারে আশা তৈরি হয়েছিল যে, এ বার ওই একই পথে হাঁটবে আর এক মূল্যায়ন বহুজাতিক এসঅ্যান্ডপি। কিন্তু শুক্রবার মার্কিন সংস্থাটি জানিয়েছে যে, আপাতত ভারতের রেটিং একই (BBB-) রাখছে তারা। বদলাচ্ছে না অর্থনীতি সম্পর্কে সার্বিক দৃষ্টিভঙ্গীও। তাদের মতে, এই মুহূর্তে তা ‘স্থিতিশীল’ (স্টেব্‌ল)।

এসঅ্যান্ডপি-র ঘোষণার পরে প্রত্যাশিত ভাবেই এ দিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা বলেছেন, তাঁরা হতাশ নন। কারণ, সরকার যে ভাবে সংস্কারের পথে হেঁটেছে এবং হাঁটছে, তার যথেষ্ট প্রশংসা করেছে মূল্যায়ন সংস্থাটি। বলেছে জিএসটি চালু, নতুন দেউলিয়া বিধি, অনুৎপাদক সম্পদে রাশ, ব্যাঙ্কে পুঁজি জোগানো ইত্যাদির কথা। কিন্তু তা বলে ‘বাড়তি সাবধানী’ বলে এসঅ্যান্ডপি-কে কিছুটা দুষতেও ছাড়েনি কেন্দ্র। ক্ষমতার অলিন্দেরও অনেকে বলছেন, যে সমস্ত সরকারি বন্ডে টাকা ঢালা যায়, তার একেবারে নীচের ধাপের রেটিং BBB-। তাই মুডি’জের মতো এসঅ্যান্ডপি-ও তা অন্তত এক ধাপ ওঠাবে বলে আশা করেছিল মোদী সরকার। কিন্তু সে আশা এ দিন মেটেনি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারতের অর্থনীতির ভবিষ্যৎ সম্পর্কে নিরাশার কথা বলেনি এসঅ্যান্ডপি। বরং কিছু ক্ষেত্রে প্রশংসাই করেছে। কিন্তু তাই বলে এখনই রেটিং বাড়ানোর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে মনে করেনি তারা। অর্থাৎ, সেই তকমা দেওয়ার আগে তারা আরও কিছুটা বাজিয়ে দেখার পক্ষপাতী। এ প্রসঙ্গে তাঁরা মনে করিয়ে দিয়েছেন, চিন্তার অবকাশ যে কিছু ক্ষেত্রে থেকে গিয়েছে, তা কিন্তু বলেছিল রেটিং বাড়ানো মুডি’জও। একই সঙ্গে তাঁদের ধারণা, এ দিন এসঅ্যান্ডপি যে ভাবে বৃদ্ধি ধাক্কা খাওয়ার জন্য নোটবন্দি কিংবা তড়িঘড়ি জিএসটি চালুর কথা উল্লেখ করেছে, তা মোদী সরকারকে কিছুটা অস্বস্তিতে ফেলতে বাধ্য।

Advertisement

একই সঙ্গে এসঅ্যান্ডপি জানিয়েছে, এ দেশে মাথাপিছু আয় এখনও তলানিতে। জিডিপি-র অনুপাতে ঋণ বেশি, কম রাজস্ব আদায়। অর্থাৎ, অর্থনীতির কোন ঝুঁকিগুলি এই মুহূর্তে রেটিং বাড়ানো থেকে তাদের বিরত রেখেছে, তা স্পষ্ট করে দিয়েছে মূল্যায়ন সংস্থাটি।

মূল্যায়নের মার্কশিট

• জিএসটি চালু, নতুন দেউলিয়া বিধির মতো সংস্কার প্রশংসনীয়

• অনুৎপাদক সম্পদে রাশ আর ব্যাঙ্ক-কে মূলধন জোগানোয় মজবুত হবে ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থা

• ভাল ফল দিতে পারে পরিকাঠামোয় জোর আর ব্যবসা করার পথ সহজ করতে কেন্দ্রের উদ্যোগ। আগামী দিনে চাঙ্গা হবে বৃদ্ধি

দুশ্চিন্তা

• মাথাপিছু আয় এখনও তলানিতে

• জিডিপি-র অনুপাতে যথেষ্ট চড়া সরকারি ঋণের পরিমাণ

• জিডিপির সাপেক্ষে বেশ কম রাজস্ব আদায়ও। মাত্র ২২%

• নোটবন্দিতে ধাক্কা খেয়েছে বৃদ্ধি চাঙ্গা থাকা নিয়ে বিশ্বাস

• শুরুর দিকে নানা সমস্যা হয়েছে জিএসটি চালু নিয়েও

অথচ মুডি’জের পরে এসঅ্যান্ডপি-ও ভারতীয় অর্থনীতিকে আগের থেকে বেশি নম্বর দিলে, লগ্নিকারীদের আস্থা অনেকটা বাড়ত। তা না-হওয়ায় একা মুডি’জে কতটা কাজ হবে, সে বিষয়ে অর্থনীতিবিদরা নিশ্চিত হতে পারছেন না। যদিও মার্কিন রেটিং সংস্থাটির মতে, আগামী দু’বছর বৃদ্ধি জোরালো গতিতে হবে। বিদেশি মুদ্রার ভাণ্ডার মজবুত থাকবে। কাজে দেবে পরিকাঠামোয় বিপুল অর্থ বরাদ্দ ও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে নতুন পুঁজি জোগানের পরিকল্পনা। কিন্তু তার জন্য রাজস্ব কোথা থেকে আসবে, তা নিয়ে চিন্তা রয়েছে। অবশ্য, নোট বাতিল ও জিএসটি-র ফলে পরে কর আদায় বাড়বে বলে এসঅ্যান্ডপির দাবি।

তবে এতেও গুজরাত ভোটের আগে ঢাক পেটানোর নতুন অস্ত্র খুঁজে পেয়েছে মোদী সরকার তথা বিজেপি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গয়াল বলেছেন, রাজ্যের নির্বাচনে মোদীর বিজেপি ভাল ফল করবে বলে পূর্বাভাস এসঅ্যান্ডপির। এর ফলে রাজ্যসভায় তাদের সদস্যসংখ্যা বাড়লে, সংস্কার সহজ হবে বলে তাঁর দাবি।

তবে কেন্দ্রের হতাশা লুকোনো থাকেনি। এসঅ্যান্ডপি মাথাপিছু আয় কম থাকার কথা তুলেছে। সে প্রসঙ্গে মুখ্য আর্থিক উপদেষ্টা সঞ্জীব সান্যাল বলেন, ঋণ শোধের ক্ষমতার সঙ্গে মাথাপিছু আয়ের সম্পর্ক নেই। আর্থিক বিষয়ক সচিব সুভাষচন্দ্র গর্গের যুক্তি, এসঅ্যান্ডপি নম্বর দেওয়া নিয়ে অতিরিক্ত সাবধানী মনোভাব নিয়েছে।

রেটিং কী?

• কোনও ব্যক্তি, সংস্থা বা দেশকে ঋণ দেওয়া কতটা ঝুঁকির, তারই মূল্যায়ন ক্রেডিট রেটিং। অর্থাৎ, রেটিং যত ভাল, তাকে ধার দেওয়ার ঝুঁকি তত কম। তাই রেটিং বাড়লে, কম সুদে ধার পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। সঙ্গে বাড়ে লগ্নিকারীদের আস্থা।

কী ঘটল?

• প্রায় ১৪ বছর পরে ১৭ নভেম্বর ভারতের রেটিং এক ধাপ বাড়িয়েছিল মুডি’জ। কিন্তু শুক্রবার সে পথে না-হেঁটে তা একই রাখল আর এক মার্কিন মূল্যায়ন সংস্থা এসঅ্যান্ডপি।

আরও পড়ুন

Advertisement