চোর সন্দেহে শহরের বুকে এক যুবককে পিটিয়ে খুন করা হল! মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন থেকে শুরু করে পাড়ায় পাড়ায় পুলিশের সচেতনতা বাড়ানোর কর্মসূচি— কোনও কিছুই যে কাজে আসেনি, দক্ষিণ দমদম পুরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের বসাকবাগান এলাকায় তার প্রমাণ মিলল সোমবার রাতে। স্থানীয় বাসিন্দাদের একটা বড় অংশ এ ব্যাপারে কোনও মন্তব্য না করলেও এলাকার তৃণমূল কাউন্সিলর দাবি করেছেন, ওই যুবককে পিটিয়ে মারা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে ন’টা নাগাদ বসাকবাগান এলাকার বাসিন্দারা একটি নির্মীয়মান বহুতলের সামনে এক যুবককে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। শুভ সরকার নামে এক স্থানীয় যুবক বলেন, “সকাল সাড়ে ন’টা নাগাদ আমি খবর পাই। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি কমলা রঙের টি-শার্ট এবং কালো ট্রাউজার্স পরাএক যুবক রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছেন।”

স্থানীয় বাসিন্দারা দমদম থানায় খবর দেন। তার আগেই স্থানীয় একটি ক্লিনিক থেকে এক চিকিৎসককে ডেকে আনা হয়। স্থানীয় এক বাসিন্দার কথায়, “প্রথম যখন দেখি, মনে হয়েছিল প্রাণ আছে। কিন্তু চিকিৎসক এসে বলেন, যুবকটি মারা গিয়েছেন।”

আরও পড়ুন: সম্পত্তি নিয়ে বিবাদে মূক ও বধির দুই দাদাকে নির্যাতন! অভিযুক্ত ছোট ভাই

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, মৃত ওই যুবকের দেহে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন ছিল। শুভ বলেন, “ছেলেটির মাথা ফেটে গিয়েছিল। হাতের আঙুল বাঁকা। হাত পা মন হয় ভেঙে গিয়েছে। পিঠেও অনেক আঘাত।” শুভ-সহ অন্য বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ওই যুবককে তাঁরা এলাকায় কখনও দেখেননি। মৃতের পকেট থেকেও এমন কিছু পাওয়া যায়নি যা থেকে তাঁর পরিচয় জানা যায়।

ঘটনাস্থলে দমদম থানার পুলিশ। —নিজস্ব চিত্র।

প্রাথমিক তদন্তের পর আঘাতের ধরন দেখে পুলিশেরও অনুমান পিটিয়ে মারা হয়েছে ওই যুবককে।মৃতদেহ যেখানে পড়ে ছিল সেই জায়গাটি দমদম না পাশের লেকটাউন, কোন থানা এলাকার মধ্যে পড়ে তা নিয়ে দীর্ঘ টালবাহানা চলে।শেষেদমদম থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। এক তদন্তকারী আধিকারিক বলেন,‘‘প্রথমে আমরা মৃতের পরিচয় জানার চেষ্টা করছি।স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে।”

ওই এলাকার বাসিন্দাদের একটা অংশের দাবি, তাঁরা রাতে কোনও ধরনের আওয়াজ পাননি। অথচ যেখানে দেহটি পাওয়া গিয়েছে, সেটি ঘন বসতিপূর্ণ এলাকা। সেখানে কাউকে পিটিয়ে মারলে আশেপাশের মানুষ জানতে পারবেন।

আরও পড়ুন: বিমানবন্দরে ধৃত ২ রোহিঙ্গা তরুণী-সহ তিন

স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলর মৃগাঙ্ক ভট্টাচার্য যদিও বলেন,‘‘আমি যা খবর পেয়েছি তাতে স্পষ্ট, ওখানকার স্থানীয় কিছু যুবক চোর সন্দেহে এক জনকে পিটিয়ে মেরেছে। রাতে ঘটনাটি ঘটেছে। এলাকার মানুষ সবাই জানে।নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক ওই এলাকার এক মহিলাও বলেন, “এখানকার একটি ক্লাবের ছেলেরা কাল মারধর করে। আমরা বাইরে বেরোইনি। তবে আওয়াজ শুনেছি। ঘটনার সঙ্গে যাঁরা যুক্ত তাঁদের অনেকেই শাসক দলের কর্মী-সমর্থক।”