ডাঙ্কা-কাঁসি-শিঙার আওয়াজে গমগম করছে ঠাকুরনগর। শুরু হয়ে গিয়েছে মতুয়া ধর্ম মহামেলা। ক্লান্তিহীন ভাবে তিন-চার ঘণ্টা ধরে চলছে মাতাম (মতুয়াদের বিশেষ নাচ) চলছে। সকলের মুখে হরিবোল ধ্বনি। বৃদ্ধ কিশোর রায়, প্রৌঢ়া মাধবী বিশ্বাসরা বললেন, ‘‘ডাঙ্কা-কাঁসির শব্দ আমাদের শক্তি জোগায়।’’

শনিবার থেকে শুরু গাইঘাটার ঠাকুরনগরে শুরু হয়েছে মেলা। একই সঙ্গে শ্রীশ্রী হরিচাঁদ ঠাকুরের ২০৬ তম জন্মোৎসবও পালিত হচ্ছে। মেলা চলবে সাত দিন। মহারাষ্ট্র, কর্নাটক, ছত্তিসগঢ়, বিহার, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা-সহ দেশের প্রায় প্রতিটি রাজ্য থেকেই মতুয়া ভক্তেরা ঠাকুরবাড়ি আসছেন। বাংলাদেশ, মায়ানমার থেকেও অনেকে এসেছেন। ‘কামনা সাগর’-এ  ডুব দিয়ে পুণ্যস্নান সারতে চান সকলে। প্রতি বছর হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মতিথি মধু কৃষ্ণত্রয়োদশীতে পুণ্যস্নানের মাধ্যমে ওই মেলা শুরু হয়। এ বারের মেলা কমিটির আহ্বায়ক অভিজিৎ বিশ্বাস জানালেন, এ বছর কামনা সাগরে পুণ্যস্নান শুরু হচ্ছে রবিবার রাত ১টা ৫ মিনিটে। শেষ হবে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে।

ঠাকুরবাড়ি গিয়ে দেখা গেল, সারা ভারত মতুয়া মহাসঙ্ঘের সঙ্ঘাধিপতি তথা বনগাঁর সাংসদ মমতা ঠাকুর দূরদুরান্ত থেকে আসা মতুয়া ভক্তদের স্বাগত জানাচ্ছেন। সকলের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থার দিকে নজরদারি চালাচ্ছেন। এখানকার প্রতিটি বাড়ির দরজা এ সময় ভক্তদের জন্য খুলে দেওয়া হয়। বাড়ির উঠোনে ভক্তেরা বিশ্রাম নিচ্ছেন। বাড়ির মালিক পুণ্যার্থীদের খাওয়ানোর ব্যবস্থা করেছেন। ঠাকুরনগর খেলার মাঠ-সহ নানা এলাকায় বিশাল প্যান্ডেল করা হয়েছে বিভিন্ন ক্লাব ও স্বেচ্ছাসেবী সংঠনের পক্ষ থেকে। খোলা হয়েছে প্রচুর জলসত্র।

মেলা কমিটি সূত্রে জানা গেল, ১৮৯৭ সাল নাগাদ বাংলাদেশের ওড়াকান্দিতে ওই মেলার সূচনা হয়েছিল। স্বাধীনতার পরে ১৯৪৮ সালে ঠাকুরনগরে মেলা শুরু করেন প্রমথরঞ্জন ঠাকুর। তারপর থেকে প্রতি বছরই মেলা হয়ে আসছে।

তবে এত বড় মেলা এখনও ‘জাতীয় মেলা’র স্বীকৃতি না পাওয়ায় ক্ষোভ আছে মমতাদেবীর। তিনি বলেন, ‘‘এত বড় মেলা দেশে কমই আছে। লক্ষ লক্ষ মানুষ আসেন। অথচ আজও মেলাটি জাতীয় মেলার স্বীকৃতি পেল না।’’