এক গৃহবধূকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করার অভিযোগ উঠল তাঁর ভাসুরের ছেলের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে ভাঙড়ের কাশীপুর থানার স্বরূপনগরে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ওই বধূর নাম নারায়ণদাসী মণ্ডল (৫৫)। তাঁর বাপের বাড়িও ওই গ্রামে। এই ঘটনায় রাত পর্যন্ত কেউ কোনও অভিযোগ দায়ের করেনি। সেই কারণে পুলিশ একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছে। গ্রেফতার করা হয়েছে মূল অভিযুক্তকে। তার নাম অজয় মণ্ডল।

পুলিশ সূত্রের খবর, উত্তর ২৪ পরগনার হাড়োয়া থানার পশ্চিম ভয়দা গ্রামের বাসিন্দা বাদল মণ্ডলের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল নারায়ণদাসীর। স্বামী মারা যাওয়ার পরে বেশ কয়েক বছর ধরে ওই মহিলা তাঁর বাপের 

বাড়িতে থাকছিলেন। অভিযোগ, সম্প্রতি ওই গৃহবধূর ছেলে দীপঙ্কর মণ্ডল তাঁর জেঠু সুকুমার মণ্ডলের ছেলে অজয়ের স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়ে যান। সেই ঘটনার জেরে নারায়ণদাসীর সঙ্গে ভাসুর ও তাঁর ছেলের মাঝেমধ্যেই ঝামেলা হচ্ছিল। এ দিন দুপুরে অজয় স্বরূপনগর থেকে কাকিমার কাছে এসেছিল। ওই ঘটনা নিয়ে দু’জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। তার পরেই অজয় আচমকা দা দিয়ে কাকিমাকে কোপাতে শুরু করে বলে অভিযোগ। গুরুতর জখম অবস্থায় 

নারায়ণদাসীকে স্থানীয় জিরানগাছা গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। ওই ঘটনার পরে অজয়কে স্থানীয় বাসিন্দারা আটক করে বেধড়ক মারধর করেন। খবর পেয়ে পুলিশ পৌঁছে অজয়কে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।