কর্মসংস্থান নিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে আক্রমণ করলেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য ও বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। রবিবার কাঁকসা ও বুদবুদে পৃথক দু’টি সভায় তাঁরা রাজ্যের নানা প্রকল্পের সুবিধার কথাও জানান। জনপ্রতিনিধিদের মানুষের পাশে থাকার পরামর্শ দেন অনুব্রত।

আসন্ন ব্রিগেড সমাবেশের প্রস্তুতি হিসেবেই এ দিন দুই এলাকায় সভা দু’টি করেন চন্দ্রিমা ও অনুব্রত। বুদবুদের সোঁয়াই গ্রামের সভায় অনুব্রত অভিযোগ করেন, বিজেপি ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটের আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, বছরে দু’কোটি বেকার চাকরি পাবেন। কিন্তু তা হয়নি। সাড়ে চার বছরে কেন্দ্রীয় সরকার কোনও উন্নয়ন করেনি দাবি করার পাশাপাশি তিনি রাজ্যের নানা কাজের কথা উল্লেখ করেন। 

পঞ্চায়েত প্রধানদের উদ্দেশ্যে অনুব্রত বলেন, ‘‘মানুষের সঙ্গে ভাল ব্যবহার করবেন। কেউ কোনও কাজে এলে চা খাওয়াবেন। তাঁদের কাজ করে দেবেন।’’ কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘‘উর্বর জমিতে চাষ করার জন্য পাচনের দরকার। ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই।’’ সভায় ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ, আউশগ্রামের বিধায়ক অভেদানন্দ থান্দার, বীরভূম জেলা পরিষদের সভাধিপতি

বিকাশ রায়চৌধুরীরা।

কাঁকসার মলানদিঘিতে মহিলা তৃণমূল আয়োজিত জনসভায় এসেছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। তাঁর বক্তব্য, ‘‘এই ব্রিগেড সমাবেশের তাৎপর্য অন্য রকম। কারণ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল সেখানে উপস্থিত হবে।’’ কর্মসংস্থান, কালো টাকা উদ্ধারের ব্যাপারে বিজেপি-র প্রতিশ্রুতি নিয়ে সরব হন তিনি। সেই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কন্যাশ্রী, শিক্ষাশ্রী, সবুজসাথী, খাদ্যসাথী-সহ বিভিন্ন প্রকল্পে এ রাজ্যের বহু মানুষ উপকৃত হচ্ছেন বলে তাঁর দাবি।

বিজেপির সাংগঠনিক জেলা সভাপতি (বর্ধমান সদর) সন্দীপ নন্দীর প্রতিক্রিয়া, ‘‘রাজ্য যে সব কাজ করছে, সবই কেন্দ্রের প্রকল্প। সেগুলি তৃণমূলের সরকার নিজেদের

নামে চালাচ্ছে।’’