শুধু আসানসোল নয়, বাঁকুড়ার বড়জোড়া, পুরুলিয়ার নিতুড়িয়া-সহ বিস্তীর্ণ খনি এলাকা জুড়ে নজরদারি বাড়াতে হবে। সোমবার দুর্গাপুরে এসে বেআইনি কয়লার কারবার বন্ধে পুলিশকে আরও সক্রিয় হওয়ার নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

পুলিশ কমিশনার লক্ষ্মীনারায়ণ মিনার কাছে বেআইনি কয়লার কারবার বন্ধে পুলিশ ব্যবস্থা নিয়েছে কি না, তা জনতে চান মুখ্যমন্ত্রী। জবাবে কমিশনার জানান, মুখ্যমন্ত্রীর পরামর্শ মেনে ইতিমধ্যেই বিভিন্ন জায়গায় সিসি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। সঙ্গে অভিযানও চলছে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘অভিযান চলছে ঠিক আছে। কিন্তু অনেকেই বেশি লোভী হয়ে যাচ্ছে কি না! ভাল করে নজর রাখুন।’’ তিনি জানান, আসানসোল, বাঁকুড়ার বড়জোড়া, পুরুলিয়ার নিতুড়িয়া-সহ বিস্তীর্ণ খনি এলাকায় বেআইনি কয়লার কারবার বন্ধে বিভিন্ন জেলা পুলিশের মধ্যে আরও সমন্বয় গড়ে তুলতে হবে। তাঁর পরামর্শ, এর সঙ্গে পূর্ব বর্ধমান, বীরভূমকেও জোড়া দরকার। কারণ, এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় কয়লার গাড়ি যাতায়াত করে। স্থানীয় পুলিশের সহযোগিতা ছাড়া তা কিছুতেই সম্ভব হতে পারে না বলে মন্তব্য করেন মুখ্যমন্ত্রী। কমিশনারকে লক্ষ্য করে তিনি বলেন, ‘‘স্থানীয় আইসি’র সহযোগিতা ছাড়া এ সব হতে পারে না। তাই ভাল করে নজর রাখুন।’’ রাজ্য পুলিশের ডিজি সুরজিৎকর পুরকায়স্থ বলেন, ‘‘বেআইনি কয়লার কারবার রুখতে কী কী করা হচ্ছে তা খতিয়ে দেখা হয়।’’

বেআইনি খাদানের প্রসঙ্গ তুলে মুখ্যমন্ত্রী জানান, কিছু কিছু মাফিয়া এ সব খনি থেকে রোজগার করছে। সে জন্য বেআইনি খনিগুলিকে আইনি করার উপরে জোর দেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘আমরা বলেছি, বেআইনি কয়লা খনিগুলিকে জয়েন্ট ভেঞ্চার করে কি আইনি করা যায়, তা ভাবা হোক। তা হলে কেন্দ্র ও রাজ্য- উভয়েই রাজস্ব পাবে। প্রস্তাব পাঠিয়েছি কেন্দ্রে।’’