স্বাধীনতা দিবসের দিন শিল্পাঞ্চলের রাস্তায় কড়া নজরদারির সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। সে দিন শহরে মোটরবাইক, স্কুটারের গতিতে রাশ টানার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জনবহুল রাস্তায় বাড়তি ট্র্যাফিক পুলিশ মোতায়েন করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ কমিশনারেট।

আসানসোল ডিভিশনের বিভিন্ন স্টেশনে ইতিমধ্যে নজরদারি শুরু হয়েছে। রেল পুলিশ (জিআরপি) এবং রেলরক্ষী বাহিনীর (আরপিএফ) যৌথ উদ্যোগে সমস্ত ট্রেনে তল্লাশি চলছে। কুকুরের সাহায্য নিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছেন কর্মীরা। আরপিএফের আসানসোল ডিভিশনের সিনিয়র সিকিউরিটি কমিশনার চন্দ্রভূষণ মিশ্র জানান, দিন চারেক আগে থেকে এই তল্লাশি চালু হয়েছে। সাধারণ যাত্রীদের সচেতন করার পাশাপাশি দুষ্কৃতীদের কাছেও বার্তা যাচ্ছে, দাবি করেন তিনি।

আসানসোল শহরেও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে বলে পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে। বরাকর ও ডুবুরডিহিতে ঝাড়খণ্ড সীমানায় প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। চিত্তরঞ্জন, রূপনারায়ণপুর সীমানাতেও পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। শহরের বাইপাস রাস্তাগুলি দিয়ে যাতায়াতকারী সব গাড়ি পরীক্ষা করা হচ্ছে। কমিশনারেটের এডিসিপি (পশ্চিম) অনমিত্র দাস বলেন, ‘‘শহরে ঢোকার সমস্ত রাস্তায় নাকা তল্লাশি চলছে।’’

ছুটি ও উৎসবের সময়ে শহরে মোটরবাইক দৌরাত্ম্যের অভিযোগ ওঠে। বৃহস্পতিবার স্বাধীনতা দিবসের দিন রাখি উৎসবও রয়েছে। পুলিশ জানায়, মোটরবাইকের দাপাদাপি রুখতে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এসবি গড়াই রোড, হাটন রোড, স্টেশন রোড, জিটি রোডের নানা জায়গায় গতি মাপার যন্ত্র নিয়ে হাজির থাকবেন পুলিশ অফিসারেরা। বেশি সংখ্যায় ট্র্যাফিক পুলিশও রাখা হবে। নিয়ম ভাঙলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে, জানায় পুলিশ।