পুলিশি পাহারায় ঘরে ফিরলেন কাউন্সিলর
নির্বাচনের পরে সিপিএমের এক পোলিং এজেন্টকে মারধর করার অভিযোগে স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ চড়াও হয় ওই কাউন্সিলরের বাড়িতে।
TMC

আশিসনগরের বাড়িতে ফিরলেন তৃণমূল কাউন্সিলর। নিজস্ব চিত্র

আঠারো দিন পরে ঘরে ফিরলেন দুর্গাপুরের ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর শশাঙ্কশেখর মণ্ডল। রবিবার কোকআভেন থানার পুলিশ তাঁকে বাড়িতে পৌঁছে দেয়। অশান্তির আশঙ্কায় বাড়ির সামনে পুলিশের পাহারার ব্যবস্থাও করা হয়। তবে এ দিন আর কোনও অশান্তি হয়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নির্বাচনের পরে সিপিএমের এক পোলিং এজেন্টকে মারধর করার অভিযোগে স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ চড়াও হয় ওই কাউন্সিলরের বাড়িতে। তার পর থেকে আর এলাকায় ঢুকতে পারেননি তিনি। আশিসনগর এলাকায় ভোটে সিপিএমের এজেন্ট থাকা স্থানীয় বাসিন্দা বিবেকানন্দ মল্লিকের বাড়ি-সহ কয়েকটি বাড়িতে ১ মে রাতে হামলা হয় বলে অভিযোগ। কাউন্সিলর শশাঙ্কশেখরবাবু এবং তাঁর অনুগামীরা এই ঘটনায় দায়ী, এমন অভিযোগ তুলে কাউন্সিলরের বাড়িতে পাল্টা হামলা হয়। ভাঙচুর করা হয় তৃণমূলের কার্যালয় ও কয়েকটি বাড়ি। গোলমালের খবর পেয়ে পুলিশের বড় বাহিনী পৌঁছলে তাদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখান এলাকাবাসীর একাংশ। তাঁরা অভিযোগ করেন, কাউন্সিলর ও তাঁর দুই দাদা-সহ কয়েকজন অনুগামী তাঁদের সব সময় আতঙ্কে রেখেছেন।

সেই রাত থেকেই এলাকাছাড়া ছিলেন কাউন্সিলর। দলের কাছে ঘরে ফেরানোর আর্জি জানান তিনি। তৃণমূলের একটি সূত্রের দাবি, দলের তরফে কাউন্সিলরকে সতর্ক করা হয়। তাঁকে ঘরে ফেরানোর জন্য পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেন দলের নেতারা। রবিবার দুপুরে কাউন্সিলর ও তাঁর মাকে আশিসনগরের বাড়িতে নিয়ে যায় পুলিশ। কোনও রকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়নি তাঁদের। তবে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে বাড়ির সামনে পুলিশি পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

শশাঙ্কবাবু বলেন, ‘‘দল বরাবর আমার পাশে আছে। আমি বাড়ি ফিরতে পেরেছি। আমি বিরোধীদের ষড়যন্ত্রের শিকার। তবে এ সবের পিছনে কে বা কারা রয়েছেন, সব তথ্য সময় এলে প্রকাশ করব।’’ গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কোনও ঘটনা রয়েছে কি না, সে প্রশ্নে কাউন্সিলর বলেন, ‘‘মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েছি। এখন কিছু বলব না। দলকে পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট দেব। দলের কেউ যদি জড়িত থাকেন সেটাও জানাব।’’ বাড়ি ফিরলেও পুলিশি পাহারা উঠে যাওযার পরে ফের যদি অশান্তি হয়, সেই আশঙ্কায় নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন বলে দাবি করেন কাউন্সিলর। তাঁর কথায়, ‘‘চরম আতঙ্কে রয়েছি।’’

পুলিশ জানায়, পরিস্থিতির উপরে নজর রাখা হচ্ছে। সিপিএমের জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য পঙ্কজ রায়সরকারের প্রতিক্রিয়া, ‘‘কাউন্সিলর ঘরে ফিরেছেন, ভাল কথা। তবে অত্যাচার, সন্ত্রাস শেষ কথা বলে না, সেই শিক্ষা নিক তৃণমূল।’’

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত