টোটো ধরপাকড় শুরু করেছে প্রশাসন। কিন্তু শহরের রাস্তায় টোটো চলতে না দিলে তাঁদের সংসার চলবে কী ভাবে, প্রশ্ন তুলছেন চালকেরা। আটক টোটোগুলিকে ছেড়ে দেওয়া এবং সব টোটোকে বৈধ নম্বর দেওয়ার দাবিতে আজ, মঙ্গলবার থেকে ফের তাঁরা আন্দোলনে নামবেন বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ওই চালকেরা।

প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, দুর্গাপুরে পুরসভার টেম্পোরারি আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (টিআইএন) রয়েছে রয়েছে ৭৫৯টি টোটোর। কিন্তু নথিবদ্ধ নয়, এমন টোটোর সংখ্যা এর থেকে অনেক বেশি। বৃহস্পতিবার দুর্গাপুরের চার জায়গায় অভিযান চালিয়ে ২০টি টোটো আটক করেন প্রশাসনের আধিকারিকেরা। এর পরে কয়েক  জন টোটো চালক বেনাচিতির প্রান্তিকা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বিক্ষোভ দেখান। তাঁদের দাবি, টোটো  চালানো বন্ধ হয়ে গেলে সংসার চলবে না। শুক্রবার সব টোটোকে ‘টিআইএন’ দেওয়ার দাবি তুলে মিছিল করে গিয়ে মহকুমাশাসকের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ দেখান কয়েকজন টোটো চালক।

ডিএসপি টাউনশিপের আকবর রোড ময়দানে রবিবার টোটো চালকেরা একটি বৈঠক করেন। তাঁরা জানান, সেখানে ঠিক হয়েছে, আটক টোটোগুলিকে বিনা শর্তে মুক্তি দেওয়া এবং সব টোটোকে ‘টিআইএন’ দেওয়ার দাবিতে আজ, মঙ্গলবার এবং ১৬ অগস্ট মহকুমাশাসকের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ দেখানো হবে। টোটোগুলিকে ছেড়ে না দিলে চালকেরা জাতীয় সড়ক অবরোধের হুমকিও দিয়েছেন।

টোটো চালক পরিতোষ রায়, বিদ্যুৎ সোনকর, অনিল সাউদের প্রশ্ন, ‘‘বাসের রুটে টোটো চালানো মানা প্রশাসনের। কিন্তু দুর্গাপুরের সব রুটে বাস ও অটো চলে। তাহলে আমরা কোথায় যাব?’’ তাঁরা জানান, সরকারি নিয়মে রাজস্ব দিতে তাঁরা রাজি। তাঁরা বলেন, ‘‘সরকার আমাদের কাছে রাজস্ব নেওয়ার ব্যবস্থা করুক, যাতে টোটো চালিয়ে আমরা সংসার চালাতে পারি।’’

দুর্গাপুরের মহকুমাশাসক অনির্বাণ কোলে অবশ্য বলেন, ‘‘প্রশাসনের অভিযান চলবে। এর পরে যেমন পরিস্থিতি তৈরি হবে, প্রশাসন তেমন ব্যবস্থা নেবে।’’