• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

আলাদা দিনে খুলবে পথের দু’ধারের দোকান

Police
বর্ধমানে দোকান বন্ধ করাচ্ছে পুলিশ। নিজস্ব চিত্র

চতুর্থ দফার ‘লকডাউন’-এর আগে দোকানপাট খোলার ব্যাপারে কিছুটা শিথিলতা দেওয়া হয়েছে বর্ধমান শহরে। কিন্তু তাতে অনেক ক্ষেত্রেই সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকছে না বলে অভিযোগ। সমস্যা মেটাতে সোমবার থেকে ‘লেফট-রাইট’ পদ্ধতিতে দোকান খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

শুক্রবার জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বর্ধমান শহরের ব্যবসায়ীদের একটি বৈঠক হয়। সেখানে ঠিক হয়,  তিন ভাগের এক ভাগ দোকান খোলা থাকবে। শনিবার সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী,  দোকান খোলে বর্ধমান শহরের বিসি রোড চত্বরে। কিন্তু, দোকান খুলতেই দেখা যায় ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। পুলিশ বেশ কিছু দোকান বন্ধ করিয়ে দেয়। রবিবার সমস্যা মেটাতে আসরে নামে জেলা ব্যবসায়ী সুরক্ষা সমিতি। বর্ধমান থানায় গিয়ে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। সেখানেই ঠিক হয়, শহরের ব্যবসার প্রাণকেন্দ্র বিসি রোডে আজ, সোমবার থেকে ‘লেফট-রাইট’ ভিত্তিতে দোকানপাট খোলা থাকবে। অর্থাৎ কার্জনগেট থেকে উত্তর ফটক পর্যন্ত এক দিন ডান দিকের সমস্ত দোকান খোলা থাকবে, পরের দিন বাঁ দিকের দোকানগুলি খোলা থাকবে। দু’দিন এক সঙ্গে খোলা যাবে না।

ব্যবসায়ী সুরক্ষা সমিতি সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার কার্জনগেটের দিক থেকে ডান দিকের সমস্ত খোলা হবে, মঙ্গলবার খুবে উল্টো দিকের দোকান। ব্যবসায়ীদের আশা, এর ফলে ভিড় অনেকটাই কমিয়ে আনা যাবে। যদিও শহরের দত্ত সেন্টার, বৈদ্যনাথ কাটরার মতো মার্কেট কমপ্লেক্সের দোকানগুলি কী ভাবে খোলা হবে সে বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। গৃহীত হয়নি। ব্যবসায়ী সুরক্ষা সমিতির সম্পাদক বিশ্বেশ্বর চৌধুরী বলেন, ‘‘এই পদ্ধতিতে এক দিকে যেমন সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হবে, তেমনই প্রত্যেক দোকানদার ব্যবসা করার সুযোগ পাবেন।’’ নতুন নিয়মে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দোকান খোলা থাকবে বলেও জানান তিনি। বর্ধমান থানারও দাবি, আশা করা যায় এই পদ্ধতিতে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন