গত কয়েক বছরের ‘ট্র্যাডিশন’ই বজায় রইল। এ বারও দুই জেলায় মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ছাত্রীর সংখ্যা বাড়ল। আজ, সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে মাধ্যমিক। পরীক্ষা যাতে সুষ্ঠু ভাবে হয়, সে জন্য সব রকম ব্যবস্থাই নেওয়া হয়েছে বলে দুই জেলার পুলিশ ও প্রশাসনিক কর্তারা জানিয়েছেন।

মধ্যশিক্ষা পর্ষদ সূত্রে জানা গিয়েছে, এ বার হুগলিতে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৫৯ হাজার ২৫৯। তার মধ্যে ছাত্র ২৬ হাজার ০৮৯ জন। আর ছাত্রী ৩৩ হাজার ১৭০। জেলার মোট ১৬৭টি কেন্দ্রে পরীক্ষা নেওয়া হবে। এর মধ্যে প্রধান পরীক্ষাকেন্দ্র ৭৫টি। শ্রীরামপুর মহকুমার পরীক্ষা ব্যবস্থা পর্ষদের কলকাতা আঞ্চলিক দফতরের অধীনে। চুঁচুড়া (সদর), চন্দননগর এবং আরামবাগ— এই তিনটি মহকুমা পর্ষদের বর্ধমান আঞ্চলিক দফতরের আওতায়। দফতরের বর্ধমানের অঞ্চলিক অধিকর্তা রবীন্দ্রনাথ পাল বলেন, ‘‘বিভিন্ন পরীক্ষাকেন্দ্র, পুলিশ-প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে সমন্বয় রেখে কাজ করা হচ্ছে। যাতে পরীক্ষা নির্বিঘ্নে এবং সুষ্ঠু ভাবে শেষ হতে পারে।’’

রবীন্দ্রনাথবাবু আরও জানান, ওই তিন মহকুমার কোনও পরীক্ষার্থী সমস্যায় পড়লে বর্ধমানে আঞ্চলিক দফতরের কন্ট্রোল-রুমে যোগাযোগ করলে প্রয়োজনীয় সাহায্য করা হবে। শ্রীরামপুরের ক্ষেত্রে কলকাতা আঞ্চলিক দফতরে যোগাযোগ করা যাবে। শিক্ষা দফতরের আধিকারিকদের বক্তব্য, নকল রুখতে পরীক্ষাকেন্দ্রের ভিতরে-বাইরে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চন্দননগরের পুলিশ কমিশনার অজয় কুমার জানান, প্রতিটি পরীক্ষাকেন্দ্রের সামনে পুলিশ মোতায়েন করা হবে। রাস্তায় পুলিশের টহলদারিও চলবে। পরীক্ষাকেন্দ্রের ১০০ মিটারের মধ্যে ফোটোকপির দোকান খোলা চলবে না। মাইক বাজানোও নিষিদ্ধ। রাস্তায় ট্র্যাফিক পুলিশের তরফে যান নিয়ন্ত্রণ করা হবে। একই কথা জানিয়েছেন হুগলি (গ্রামীণ) জেলা পুলিশ সুপার সুকেশ জৈনও।

জেলার আঞ্চলিক পরিবহণ অধিকর্তা শুভেন্দুশেখর দাস জানান, দফতরের পক্ষ থেকে মাধ্যমিকের জন্য বিশেষ পথ সুরক্ষার কর্মশালা করা হয়েছে। পরীক্ষার দিনগুলিতে বাস এবং অটো-টোটো-ট্রেকারের মতো যাত্রিবাহী গাড়ি যাতে পুরোদমে চলে, সে কথা বলা হয়েছে। পর্যাপ্ত গাড়িই চলবে। পথে কোনও পরীক্ষার্থী সমস্যায় পড়লে দফতরের কন্ট্রোল-রুমে জানালে দ্রুত তাকে পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

হাওড়ায় এ বার মোট নিয়মিত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৫১ হাজার ১১৬ জন। এই সংখ্যা গতবারের থেকে হাজারখানেক বেশি বলে জেলা স্কুল পরিদর্শক (মাধ্যমিক) শান্তনু সিংহ জানিয়েছেন। ছাত্রীর সংখ্যা যেখানে ২৮ হাজার, ছাত্রের সংখ্যা সেখানে ২৩ হাজার ১১১ জন। এ বারে মোট পরীক্ষাকেন্দ্রের সংখ্যা ১৪৩টি। তার মধ্যে প্রধান পরীক্ষাকেন্দ্র ৪০টি। টোকাটুকি রুখতে সংবেদনশীল ৮টি পরীক্ষাকেন্দ্রে ভিডিওগ্রাফির ব্যবস্থা থাকবে বলে শান্তনুবাবু জানিয়েছেন।

পরীক্ষা চলাকালীন পরীক্ষাকেন্দ্রগুলি এবং সংলগ্ন এলাকায় কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। তবে পু‌লিশ বিশেষ জোর দিয়েছে সুষ্ঠু যান চলাচলে। পরীক্ষাকেন্দ্র সংলগ্ন রাস্তা এবং মোড়গুলিতে কোনও ভাবেই যাতে যানজট না হয়, তা সুনিশ্চত করা হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে। সকাল থেকেই পদস্থ পুলিশকর্তারা যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করতে রাস্তায় নেমে পড়বেন বলে জানিয়েছেন গ্রামীণ জেলা পুলিশ সুপার গৌরব শর্মা। তিনি বলেন, ‘‘পরীক্ষাকেন্দ্রে যাতায়াতের পথে পরীক্ষার্থীরা কোনও রকম সমস্যায় পড়বে না। পুলিশ প্রয়োজনীয় সব রকম ব্যবস্থা নেবে।’’

এক নজরে

হাওড়া

• মোট পরীক্ষাকেন্দ্র: ১৪৩

• প্রধান পরীক্ষাকেন্দ্র: ৪০

• মোট পরীক্ষার্থী: ৫১,১১১

• ছাত্র:২৩,১১১

• ছাত্রী: ২৮,০০০

• সমস্যায়: ৯৪৩৪৬৯৩৪৮৫ শান্তনু সিংহ, জেলা স্কুল পরিদর্শক।

 

হুগলি

• মোট পরীক্ষাকেন্দ্র: ১৬৭

• প্রধান পরীক্ষাকেন্দ্র: ৭৫

• মোট পরীক্ষার্থী: ৫৯,২৭৯

• ছাত্র:২৬,০৮৯

• ছাত্রী: ৩৩,১৭০

• সমস্যায়: মধ্যশিক্ষা পর্ষদের বর্ধমান আঞ্চলিক দফতরের কন্ট্রোল রুম: ০৩৪২-২৬৬২৩৭

• জেলা আঞ্চলিক পরিবহণ   দফতরের কন্ট্রোল রুম: ২৬৮১-২৬৭৬