উলুবেড়িয়ায় মেডিক্যাল কলেজ তৈরির প্রস্তাব অনুমোদন করল রাজ্য সরকার। 

বৃহস্পতিবারই এই সিদ্ধান্তের কথা জেলা স্বাস্থ্য দফতরকে জানিয়ে দিয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতর। স্বাস্থ্যভবন সূত্রের খবর, রাজ্য স্বাস্থ্য নিগমকে বিস্তারিত প্রকল্প রিপোর্ট (ডিপিআর) তৈরির জন্য ইতিমধ্যেই বলা হয়েছে। সেটি পাওয়ার পরেই নির্মাণকাজ শুরু হয়ে যাবে।

হাওড়ার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ভবানী দাস বলেন, ‘‘বৃহস্পতিবার বিকেলেই উলুবেড়িয়ায় মেডিক্যাল কলেজ তৈরির সিদ্ধান্তের কথা রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর থেকে জানানো হয়েছে।’’ মেডিক্যাল কলেজ তৈরির জন্য যিনি রাজ্য সরকারের কাছে নিয়মিত তদ্বির করে গিয়েছেন, সেই উলুবেড়িয়া দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক পুলক রায় বলেন, ‘‘আমাদের কাছেও রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতর থেকে চিঠি এসেছে। আমরা খুশি, মেডিক্যাল কলেজের রাজ্য মানচিত্রে উলুবেড়িয়াও জায়গা করে নেওয়ায়।’’

প্রতিটি লোকসভা কেন্দ্রে একটি করে মেডিক্যাল কলেজ তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র সরকার। সেই নীতি মেনেই উলুবেড়িয়ায় মেডিক্যাল কলেজ তৈরির ব্যাপারে প্রস্তাব পাঠায় জেলা স্বাস্থ্য দফতর। স্বাস্থ্যভবন থেকে সেই প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। সেই হিসেবে মাসছয়েক আগে থেকে উলুবেড়িয়ায় মেডিক্যাল কলেজ তৈরির ব্যাপারে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে তৎপরতা শুরু হয়।

মেডিক্যাল কলেজের জন্য ২০ একর জমি দরকার। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বর্তমানে উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে যে ১৫ একর জমি আছে সেটি এবং উলুবেড়িয়া-১ ব্লক বীজ খামারের সাত একর মিলিয়ে ২২ একর জমি মেডিক্যাল কলেজের জন্য দিয়ে দেওয়া হবে। সেই প্রস্তাবের ভিত্তিতে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পদস্থ কর্তারা জমি দু’টি পরিদর্শন করে তাঁদের সম্মতির কথা জানিয়ে দেন।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রের খবর, বীজ খামারে হবে মেডিক্যাল কলেজের প্রশাসনিক ভবন। ৪০০ শয্যার মহকুমা হাসপাতালে যা ৭০০ শয্যার সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল হওয়ার কথা ছিল, সেখানেই হবে মূল কলেজটি। মেডিক্যাল কলেজে পরিণত হওয়ার পরে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের অস্তিত্ব আর থাকবে না। এটি তখন পরিচিত হবে উলুবেড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ হিসাবে।