• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

নালিশ সত্যি, প্রমাণ শাসক দলের তদন্তে

TMC
তদন্ত রিপোর্টের সঙ্গে তৃণমূল জেলা নেতৃত্বের কাছে জমা পড়েছে প্রধানের বাড়ির ছবি (বাঁ দিকে)। ভাঙা বাড়ির সামনে সস্ত্রীক বিজেপি নেতা রোহিত। নিজস্ব চিত্র

বড়সড় বাড়ি রয়েছে যাঁদের, তাঁরাও পেয়েছেন আমপানের ক্ষতিপূরণ। তৃণমূলের নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে এমনই ভুরি ভুরি অভিযোগ আসছে। পশ্চিম মেদিনীপুরের গড়বেতা-১ ব্লকের আগ্রায় তেমনই  অভিযোগের দলীয় তদন্তে দেখা গিয়েছে, অভিযোগ সঠিক। ব্লক থেকে সেই তদন্ত রিপোর্ট জমা পড়েছে দলের জেলা নেতৃত্বের কাছে।  

অভিযুক্তদের কি শো-কজ় করা হবে? গড়বেতার বিধায়ক আশিস চক্রবর্তীর জবাব, ‘‘দল কঠোর ব্যবস্থা নেবে।’’ তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা জেলা পরিষদের সহ- সভাধিপতি অজিত মাইতিরও আশ্বাস, ‘‘দুর্নীতিতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রশাসনকেও বলব, উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে।’’ 

আমপান ঘূর্ণিঝড়ের ত্রাণ বিলি নিয়ে বেশ কিছু অভিযোগ আসায় প্রশাসনিক ও পঞ্চায়েত কর্তাদের একাংশের উপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ত্রাণ বিলি নিয়ে দলবাজি বা দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি। দলীয় সূত্রে খবর, গড়বেতার ঘটনায় অভিযুক্তদের টাকা ফেরানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাঁদের দল থেকে বহিষ্কারও করা হতে পারে।

নিয়ম অনুযায়ী, আমপান ঝড়ে যাঁদের বাড়ি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তাঁদেরই ক্ষতিপূরণ পাওয়ার কথা। অথচ, গড়বেতায়  বাড়ির এক-দু’টো টালি ভেঙেছে, এমন অনেকেও ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়েছেন বলে অভিযোগ। তৃণমূল সূত্রে খবর, গড়বেতা-১ ব্লকের আগ্রা পঞ্চায়েতের প্রধান সমশ্রী মল্লিকের শাশুড়ি শিবানী মল্লিক ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়েছেন। তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি আজিম চৌধুরীর স্ত্রী সাইমা চৌধুরীও টাকা পেয়েছেন। অথচ, দলীয় তদন্তে উঠে এসেছে, এঁদের কেউ প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত নন। তাঁদের পেল্লায় বাড়িও রয়েছে।

তিন সদস্যের ওই তদন্তকারী দলে আছেন তৃণমূলের গড়বেতা ১ ব্লক কার্যকরী সভাপতি অসীম সিংহ রায়, ব্লকের মহিলা তৃণমূলের সভাপতি মিঠু প্রতিহার। সম্প্রতি তদন্তকারী দল ওই দু’জনের বাড়িতে গিয়েছিল। জেলা নেতৃত্বের কাছে আসা রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘স্বাভাবিকভাবে এলাকার লোকজন এটা (দুর্নীতির কথা) জানতে পারায় দলের নামে একটা খারাপ প্রভাব পড়েছে। বিরোধী দল বিজেপিও এলাকায় এটা প্রচার করতে থাকছে।’ 

ওই পঞ্চায়েত প্রধান এবং অঞ্চল সভাপতি অবশ্য দলের কাছে দাবি করেছেন, তাঁরা দুর্নীতি করেননি। তাঁদের নামে অপপ্রচার করা হচ্ছে। স্ত্রীকে ক্ষতিপূরণের টাকা পাইয়ে দিয়েছেন? অঞ্চল সভাপতি আজিম চৌধুরীর দাবি, ‘‘আমার অঞ্চলে যাঁরা ক্ষতিপূরণ পাওয়ার যোগ্য, তাঁরাই ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়েছেন।’’ আজিমের সংযোজন, ‘‘২০০৭ সাল থেকে দল করছি। তখন গড়বেতায় খুব কম লোকই প্রকাশ্যে তৃণমূল করত। কখনও এক পয়সাও দুর্নীতি করিনি! কেউ প্রমাণ দিতে পারবে না।’’

সব শুনে জেলা তৃণমূলের এক নেতার আক্ষেপ, ‘‘দলের কেউ কেউ মাত্র ২০ হাজার টাকার লোভও সামলাতে পারল না! এটা দুর্ভাগ্যের!’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন