• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

অবৈধভাবে কাজ পাইয়ে দেওয়ায় অভিযুক্ত প্রধান

অবৈধভাবে গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধানের পরিবারের এক সদস্যকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে হলদিয়ার তৃণমূল পরিচালিত দেউলপোতা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের বিরুদ্ধে। হলদিয়ার বিডিও অশোককুমার রক্ষিত জানিয়েছেন, কানাইলাল প্রামাণিক নামে এক ব্যক্তির অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। পঞ্চায়েত আইন অনুযায়ী গ্রাম পঞ্চায়েতের পরিবারের সদস্য হলে তাঁকে কাজের বরাত দেওয়া যাবে না। অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে ওই গ্রাম পঞ্চায়েতকে সতর্ক করা হবে।

ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান রীনা কুইতি বলেন, ‘‘এ বিষয়ে বিডিওর কাছে অভিযোগ হয়েছে। ওই ঠিকাদার সংস্থার মালিক যে রামপদবাবুর ভাইপো আমার জানা ছিল না। এবিষয়ে বিডিও যে নির্দেশ দেবেন তা মেনে নেব।’’                      

কানাইলালবাবুর অভিযোগ, হলদিয়ার দেউলপোতা গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান হলেন রামপদ জানার ভাইপোর সংস্থাকে কাজের বরাত পাইয়ে দিয়েছেন দেউলপোতা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান। পঞ্চায়েত আইন অনুযায়ী পঞ্চায়েত সদস্যর পরিবারের লোকজন ত্রিস্তর পঞ্চায়েত ঠিকাদারি কাজ করতে পারেন না।

 দেউলপোতা গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রামপদবাবু হলদিয়া ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতিও বটে। রামপদবাবুর কথায়, ‘‘ঠিকাদার সংস্থার মালিক আমার ভাইপো ঠিকই। কিন্তু গত ৩০ বছর ভাইপো আলাদা জায়গায় থাকে। ফলে ভাইপো আমার পরিবারের সদস্য নয়। তাছাড়াও কাজ দেওয়ার দায়িত্ব প্রধানের, আমার নয়। তাই প্রভাব খাটানোর প্রশ্নই নেই।’’

রামপদবাবুর ভাইপো স্টার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মালিক অরূপ জানা বলেন, ‘‘রামপদবাবুর  আমার কাকা ঠিকই। তার মানে আমরা একই পরিবারের সদস্য নই। আমরা শুধু ওই পঞ্চায়েত নয়, আইওসি-সহ বিভিন্ন সরকারি জায়গায় ঠিকাদারি করি। কারও প্রভাবে নয়, আইন মেনেই আমার সংস্থা কাজ পেয়েছে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন