সরস্বতী পুজোর উদ্বোধনে এসে পরোক্ষে বিঁধলেন বিজেপিকে। তবে পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী এড়িয়ে গেলেন পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড গঠন নিয়ে সংঘাতের প্রসঙ্গ।

রাজনীতির কারবারিদের একাংশ বলছেন, সাম্প্রতিক অতীতে সরস্বতী পুজোর উদ্বোধন করতে কেশিয়াড়ি আসেননি শুভেন্দু। কিন্তু শনিবার এলেন। নাম না করে কটাক্ষ করলেন বিজেপি-কেও। বললেন, ‘‘মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর ধর্ম মানব ধর্ম। আমরা কখনও নির্বাচনের জন্য রাম মন্দিরের কথা, মসজিদ, গির্জা, গুরুদ্বারের কথা কখনই বলি না। আমরা এই নীতিতে বিশ্বাস করি। আপনারা আমাদের সব উৎসবে পাবেন।’’ এর পাশাপাশি তাঁর মন্তব্য, তিনি (মুখ্যমন্ত্রী) দুর্গা পুজোর সময় একটা ভালো স্লোগান দিয়েছিলেন। ধর্ম আমার, ধর্ম তোমার, উৎসব সবার। আমরা যারা তার সৈনিক এই রীতিতেই বিশ্বাস করি।’’

৩ ডিসেম্বর কেশিয়াড়িতে প্রশাসনিক সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দুকে দায়িত্ব দিয়ে যান। তার পরেই ঘন ঘন কেশিয়াড়িতে বিভিন্ন কর্মসূচিতে আসছেন। গত ২৫ জানুয়ারি ভসরায় রাজনৈতিক সভা থেকে কেশিয়াড়িতে পুজো উদ্বোধনে আসবেন বলে জানিয়েছিলেন তিনি। সেই মতো এ দিন কেশিয়াড়ির একটি ক্লাবের সরস্বতী পুজো উদ্বোধন করলেন শুভেন্দু। এলাকার পড়ুয়া-সহ বেশ কয়েকজনের হাতে পাঠ্য সামগ্রী ও বস্ত্র দেন। পরিবেশ দফতর থেকে ক্লাবকে এক লক্ষ টাকা সাহায্যের কথা জানিয়েছেন তিনি। মন্ত্রী জানিয়েছেন ফের কেশিয়াড়িতে আসবেন তিনি। ২২ ফেব্রুয়ারি এখানে জেলা সবলা মেলা উদ্বোধন হবে।

কেশিয়াড়িতে পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড গঠন নিয়ে বিজেপির সঙ্গে সংঘাত চলছে। সে প্রসঙ্গে সরাসরি কিছু না বললেও শুভেন্দু বুঝিয়ে দিয়েছেন, রাজনৈতিক ভাবে বিজেপিকে এক চুলও মাটি ছাড়তে নারাজ তিনি। এদিন কেশিয়াড়িবাসী, বিডিও অফিসের কর্মচারী ও শিক্ষকদের আবেদনে দু’টি সরকারি বাস চালু করার কথা জানান। কেশিয়াড়ি থেকে কাঁথি ও মেদিনীপুর পর্যন্ত দুটি বাস আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি সবলা মেলা থেকেই উদ্বোধন হবে। কেশিয়াড়িবাসীর উদ্দেশ্যে তাঁর মন্তব্য, ‘‘সকলে ভাল থাকুন। উন্নয়নের পক্ষে থাকুন।’’ তৃণমূলের বক্তব্য, কেউ উৎসবে রাজনীতি খুঁজে পেতে পারেন, কিন্তু শুভেন্দু বারবার কেশিয়াড়ি আসছেন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করতে।