• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

এক বিঘা জমি না পাওয়ায় স্ত্রীকে খুন

Man killed his wife for land accusation
—প্রতীকী চিত্র

বাবার জমি লিখিয়ে দেওয়ার জন্য স্ত্রীকে চাপ দেওয়া হত বলে অভিযোগ। তাতে রাজি না হওয়ায় চার মাসের এক অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটেছে হরিহরপাড়া থানার মামলতপুরে। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতার নাম সেলিনা বিবি (২৮)। 

মৃতার পরিবার সূত্রে খবর প্রায় ১০ বছর আগে মামলতপুরের বাসিন্দা ইউনুস শেখের সঙ্গে বিয়ে হিয়েছিল সেলিনার। তাঁদের সাড়ে তিন বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। মৃতার পরিবারের দাবি, বিয়ের পর থেকেই পণের দাবিতে শ্বশুরবাড়িতে সেলিনার ওপর অত্যাচার করা হত। এর আগে একাধিক বার স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছিল ইউনুসের বিরুদ্ধে। ঝামেলার জেরে বেশ কয়েক বার কয়েক দিনের জন্য বাপের বাড়িতেও এসে উঠেছিলেন সেলিনা। মৃতার পরিবারের লোকজনের দাবি, বিয়ের সময় প্রায় তিন লক্ষ টাকা পণ নিয়েছিল ইউনুস। তাঁদের অভিযোগ, তা সত্ত্বেও মাঝেমধ্যেই সে আরও টাকা চেয়ে স্ত্রীকে চাপ দিত।  সেই টাকা জোগাড় করতে না পরালে সেলিনার ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চলত বলে অভিযোগ। 

মৃতার পরিবারের আরও দাবি, সম্প্রতি ইউনুস সেলিনার বাপের বাড়ির লোকজনকে  চাপ দেওয়া শুরু করে যাতে তাঁদের এক বিঘা একটি জমি তার নামে লিখে দেওয়া হয়। কিন্তু সেলিনার পরিবার তাতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে বাপের বাড়ি যেতে দিত না ইউনুস। অভিযোগ, সোমবার বাপের বাড়ি যাওয়ার জন্য সেলিনা জোরাজুরি করলে তাঁকে মারধর করতে শুরু করে অভিযুক্ত স্বামী। সেই খবর পেয়ে সেলিনার বাড়ির লোক ওই রাতেই ইউনুসের বাড়িতে আসেন। 

সেই সময় তাঁদের ইউনুস সাফ জানিয়ে দেয়, ওই জমি তার নামে লিখে না দিলে সে সেলিনাকে বাপের বাড়িতে যেতে দেবে না। অভিযোগ, মঙ্গলবার সকালে সেলিনাকে ফের একপ্রস্ত মারধর করা হয়। মৃতার দাদা কারিমুল শেখের অভিযোগ, ‘‘এক বিঘা জমি লিখে না দেওয়ায় ওরা আমার বোনকে মেরেই ফেলল।’’ মঙ্গলবার সকালে খবর পেয়ে সেলিনার শ্বশুরবাড়িতে যান তাঁর আত্মীয়েরা। সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাঁকে হরিহরপাড়া ব্লক হাসপাতালে নিয়ে যআওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। পরিবারের দাবি, মৃতার শরীরে একাধিক জায়গায় মারধরের চিহ্ন রয়েছে। অভিযোগ, সেলিনাকে পিটিয়ে খুন করা হয়েছে। 

মৃতার স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির মোট চারজনের বিরুদ্ধে হরিহরপাড়া থানায় খুনের লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মৃতার দাদা। ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত ইউনুস-সহ তার বাড়ির লোকজন। হরিহরপাড়া থানার পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন