নদিয়ার জেলাশাসকের নাম করে হুগলির এক অফিসারকে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় ডব্লিউবিসিএস অফিসারদের একাংশ ক্ষুব্ধ। পরবর্তী পদক্ষেপ স্থির করতে শনিবার সেই অফিসারেরা নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেছেন। তবে আগামী মঙ্গলবার, ইদের পরের দিন কর্মবিরতি করার যে প্রাথমিক চিন্তা ছিল, তা শেষ পর্যন্ত হবে কি না অনিশ্চিত। 

গত বৃহস্পতিবার হুগলির ডানকুনি পুরসভার এগজিকিউটিভ অফিসার রিজওয়ান ওয়াহাবকে ফোন করে হুমকি দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। শুক্রবার হোয়াটসঅ্যাপ মারফত ছড়িয়ে পড়া একটি অডিয়ো ক্লিপে শোনা যায়: ‘‘আপনি কি নদিয়ার জেলাশাসককে ইয়ার্কির পাত্র ভাবছেন? এত দিন হল আপনার বদলি হয়েছে... আপনি কার সঙ্গে ‘ডিল’ করছেন জানেন?’’ একটু পরে একই গলাকে হুমকি দিতে শোনা যায়, ‘‘আপনাকে নাঙ্গা করে মারব আমি!’’ তবে ওই অডিয়ো ক্লিপের সত্যতা আনন্দবাজার যাচাই করতে পারেনি।

২০০৬ ব্যাচের ওই ডব্লিউবিসিএস অফিসারের নদিয়ায় বদলির নির্দেশ এসেছে, কিন্তু তিনি আগের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পাননি। রিজওয়ানের  বক্তব্য, যাঁর তাঁকে অব্যাহতি দেওয়ার কথা, তিনি কিছু দিন না আসাতেই এই সমস্যা হয়েছে। যদিও জেলাশাসক পবন কাদিয়ান তা মানতে চাননি। তাঁর দাবি, রিজওয়ান হুগলি ছেড়ে আসতে চাইছেন না। তবে ‘নাঙ্গা’ করে পেটানোর হুমকি দেওয়ার কথা তিনি অস্বীকার করেছেন। 

এই অডিয়ো ক্লিপ ছড়িয়ে পড়ার পরেই জেলার ডব্লুবিসিএস অফিসার মহলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হয়। এঁদের একটা অংশ প্রাথমিক ভাবে কর্মবিরতি করার কথাও ভাবেন। শনিবার সন্ধ্যায় তাঁরা অফিসারেরা নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেন। পরে রাতে জেলাশাসকের বাংলোয় গিয়ে তাঁর সঙ্গেও বৈঠক করেন তাঁরা। রাতে তাঁরা জানান, সাধারণের অসুবিধার আশঙ্কা থাকায় কর্মবিরতির সিদ্ধান্ত রাজ্যস্তরের নেতাদের হাতে ছাড়া হয়েছে। তাঁরা যেমন সিদ্ধান্ত নেবেন, সেই অনুযায়ী কাজ হবে।