এক ব্যক্তির অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে ফের নতুন করে মাথাচাড়া দিল এনআরসি আতঙ্ক।

পুরাতন মালদহের খইহাট্টা এলাকায় একটি ভাড়াবাড়িতে থাকতেন সত্য কুণ্ডু (৫৯) নামে ওই ব্যক্তি। রবিবার রাতে তাঁর অচেতন দেহ উদ্ধার হয় ঘরের মধ্যেই। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাঁকে মৃত বলে জানানো হয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের বক্তব্য, এনআরসি-তে পুরনো নথি খুঁজে পাওয়া নিয়ে উদ্বেগে ছিলেন ওই ব্যক্তি। সেই আতহ্কের জেরেই তিনি আচমকা অসুস্থ হয়ে মারা যেতে পারেন বলে স্থানীয়দের সন্দেহ। অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মৃত ব্যক্তির পরিবারের কোন হদিশ নেই বলে দাবি পুলিশের। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতদেহটি মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। পরিবারের খোঁজ করা হচ্ছে। 

পুলিশ জানিয়েছে, ওই ব্যক্তি পুরাতন মালদহ শহরের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের খইহাট্টা এলাকায় থাকতেন। তিনি এলাকাতেই ক্ষৌরকর্মের কাজ করতেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, তিনি বাংলাদেশ থেকে প্রায় ২০ বছর আগে এদেশে আসেন। বাড়ি ভাড়া নিয়ে একাই থাকতেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশের দাবি, অসমে এনআরসি চালু হওয়ার পর এই রাজ্যেও এনআরসি নিয়ে হইচই শুরু হয়ে যায়। মালদহেও ভোটার কার্ড, রেশন কার্ড সংশোধনে হিড়িক পড়ে যায়। সেই সময় যাবতীয় নথি না থাকায় উদ্বেগে ছিলেন তিনি। প্রতিবেশী প্রদ্যুৎ কুণ্ডু বলেন, “প্রায় ১৫ দিন ধরে অসুস্থ হয়ে তিনি বাড়িতেই ছিলেন। এ দিন তার বাড়িতে গিয়ে দেখি তিনি মেঝেতে পড়ে রয়েছেন। হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা মৃত বলে জানান।”