ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে শুরু করল তপসিখাতা৷ তবে আতঙ্ক এখনও রয়েছে৷ রয়েছে ক্ষোভও৷

ঘটনার পর তিনদিন পরও কেটে গেলেও, এলাকার তৃণমূল কর্মী খুনে মূল অভিযুক্ত উপপ্রধান-সহ আরও দু’জনকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ৷ যার জেরে গোটা এলাকাতেই মানুষের মধ্যে ক্ষোভ  রয়েছে৷ ঘটনার পর শুক্রবার তপসিখাতা বাজার এলাকার দোকান-পাট খুলতে শুরু করলেও, জয় বাংলা হাটের অধিকাংশ দোকানই এ দিন বন্ধ ছিল৷ আতঙ্কের জেরে এলাকার স্কুলগুলিতে ছাত্র-ছাত্রী উপস্থিতিও কমে গিয়েছে৷ ঘটনার প্রতিবাদে ও উপপ্রধান-সহ বাকি অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে এ দিন সন্ধ্যায় এলাকায় মোমবাতি নিয়ে মিছিল করে স্থানীয়রা৷ মঙ্গলবার রাতের ঘটনায় দু’জন এ দিন আলিপুরদুয়ার আদালতে গোপন জবানবন্দি দেন৷

মঙ্গলবার তপসিখাতার জয় বাংলা হাটে তৃণমূল কর্মী তুষার বর্মণ খুন হন৷ অভিযোগ, জয় বাংলা হাটে স্থানীয় পরোরপাড় গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল উপপ্রধান শম্ভু রায় তুষারকে গুলি খুন করেন। ঘটনার পর এক অভিযুক্ত তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য সোনা রায়কে পুলিশ গ্রেফতার করলেও মূল অভিযুক্ত উপপ্রধান-সহ তিনজন অধরা থাকায় বুধবার ও বৃহস্পতিবারেও এলাকায় উত্তেজনা ছিল৷ আলিপুরদুয়ার-ফালাকাটা রাজ্য সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে চলে অবরোধ৷ পুলিশ ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে উপপ্রধান-সহ বাকিদের গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে ঘণ্টা দু’য়েক পর অবরোধ ওঠে৷

পুলিশের দেওয়া সময়সীমা এখনও শেষ না হওয়ায় শুক্রবার নতুন কোনও অশান্তির ঘটনা ঘটেনি। বরং, সকাল থেকেই তপসিখাতা বাজারের দোকান-পাট খুলতে শুরু করে৷ কিন্তু এ দিন হাটবার হওয়া সত্ত্বেও বহু দোকানই বসেনি৷ পুলিশ উপপ্রধান-সহ বাকি অভিযুক্তদের এখনও গ্রেফতার করতে না পারায় এলাকায় রয়েছে ক্ষোভও৷ সন্ধ্যায় মোমবাতি মিছিল করে অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তি দাবি করেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷ মিছিলে ছিলেন স্থানীয় তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকেরাও৷ এরইমধ্যে এ দিন দুপুরে আলিপুরদুয়ার আদালতে এলাকার দুই বাসিন্দা গোপন জবানবন্দি দেন।

কিন্তু মূল অভিযুক্ত এখনও গ্রেফতার না হওয়ায় অনেকেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন৷ পুলিশ কর্তারা এ দিন প্রকাশ্যে কিছু বলতে চাননি৷ তবে পুলিশের একটি সূত্রের দাবি, পলাতক অভিযুক্তরা সম্ভবত আলিপুরদুয়ার জেলা বা তার আশপাশেই কোথাও লুকিয়ে থাকতে পারে৷ আবার 

পুলিশের আরেকটি সূত্রের দাবি, এলাকা ছেড়ে পালানোর পর থেকেই অভিযুক্তরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে না৷ সে জন্যই তারা কোথায় লুকিয়ে তা জানতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে৷ তবে পুলিশের এক কর্তা জানান, অভিযুক্তদের ধরতে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে৷