• সুমন মণ্ডল
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

উদয়নের ফেসবুক পোস্টে নিশানায় পুলিশ

TMC BJP
—প্রতীকী চিত্র।

বিজেপি-র হয়ে কাজ করছে পুলিশ। ফেসবুকে পোস্ট করে কার্যত এমনই অভিযোগ তুললেন তৃণমূলের বিধায়ক উদয়ন গুহ। বৃহস্পতিবার তিনি ফেসবুকে একটি পোস্ট করে একাধিক প্রশ্ন তুলে কাঠগড়ায় দাঁড় করান দিনহাটা থানার পুলিশকে। 

দিনহাটায় ছ’বছর আগে এক ব্যক্তিকে খুনের ঘটনায় এক পরিচারিকাকে বুধবার রায়গঞ্জ থানার পুলিশ গ্রেফতার করে। ওই ঘটনার উল্লেখ করে দিনহাটা পুলিশের প্রশংসা করে ফেসবুক পোস্ট করেন তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের দিনহাটার নেতা বিশু ধর। তিনি উদয়নের অনুগামী বলেই পরিচিত।

সেই প্রসঙ্গ টেনে উদয়ন এ দিন লেখেন, ‘বন্ধু বিশু ধর তাঁর ফেবু দেওয়ালে আজকে দিনহাটা থানার আধিকারিকদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। খবরটি হচ্ছে, ছ’বছর আগে দিনহাটায় ঘটে যাওয়া খুনের সঙ্গে জড়িত মহিলা খুনিকে রায়গঞ্জ থেকে দিনহাটা পুলিশ গ্রেফতার  করে। নিশ্চয়ই প্রশংসনীয় উদ্যোগ, সাধুবাদ জানাই।’ 

এর পরেই তিনি লেখেন, ‘বন্ধু বিশুর কাছে কিছু প্রশ্ন তুলে ধরছি। আশা করছি উত্তর পাব।’ তার পরেই তাঁর প্রশ্ন, ‘ওই মহিলা (ধৃত) বা তাঁর কোনও আত্মীয় বিজেপি কর্মকর্তা হলে কি দিনহাটা থানা এই তৎপরতা দেখাত? তাই যদি হবে, ভেটাগুড়িতে পুলিশের গাড়িতে যারা বোমা ছুড়েছিল তারা কেউ কেন গ্রেফতার হল না? দিনহাটা থানায় যারা পাথর ছুড়েছিল সিসি ফুটেজে সেই ছবি থাকা সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত কাউকে ধরা গেল না কেন? প্রায় প্রতিদিন ভেটাগুড়িতে সাংসদের বাড়ির আশেপাশে বস্তাভর্তি বোমা উদ্ধার হলেও এবং রুটিন করে তৃণমূল নেতা কর্মীরা আক্রান্ত হওয়ার এফআইআর করা হলেও একজন দুষ্কৃতীও কেন ধরা পড়েছে না?’

উদয়নের আরও প্রশ্ন, ভেটাগুড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত এসআই ভেটাগুড়িতে গেলে কী করে বিজেপির নেতা-কর্মীরা আগে থেকে খবর পেয়ে যান? বোর্ডিং পাড়ায় বিজেপি নেতার মেয়েকে লক্ষ্য করে গুলিচালনার ঘটনায় অভিযুক্তদের কেন দিনহাটা ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হল? 

এর পরেই তিনি লেখেন, ‘এইসব ঘটনা কি প্রমাণ করে দিনহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিকেরা রাজ্য বিজেপি নেতাদের হুমকিতে ভয় পেয়েছেন, নাকি কোচবিহারের সাংসদের দান-ধ্যান দেখে মুগ্ধ হয়েছেন?’

দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি। দিনহাটার এক পুলিশ কর্তা বলেন, “প্রত্যেকটি অভিযোগের ক্ষেত্রেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।”

বিজেপি নেতা দীপ্তিমান সেনগুপ্ত বলেন, “তৃণমূল আর ক্ষমতায় থাকছে না। তাই হতাশা থেকেই বিধায়কের এই পোস্ট।” আর বিশু ধর বলেন, “একটি ঘটনার উল্লেখ করেছি আমি। কিন্তু, বিধায়ক সঠিক প্রশ্ন তুলেছেন।”

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন