দ্বিতীয় পর্যায়ের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরুর দ্বিতীয় দিনের পরে রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে মোট আসন সংখ্যার কাছাকাছি পৌঁছল পড়ুয়ার সংখ্যা। মেডিক্যাল কলেজ সূত্রে খবর, শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত ৯৪ জন পড়ুয়া ভর্তি হয়েছেন। তার মধ্যে সর্বভারতীয় পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ১০ জন। রাজ্যের জয়েন্টে উত্তীর্ণের সংখ্যা ৮৪ জন। বাকি ৬টি আসনে শনিবার ছাত্রভর্তি হয়ে যাবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজের এমএসভিপি (মেডিক্যাল সুপারিনন্টেডেন্ট কাম ভাইস প্রিন্সিপ্যাল) সুজয় মিস্ত্রি।

মেডিক্যাল কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম পর্যায়ে সেখানে ৮৯ জন পড়ুয়া ভর্তি হয়েছিলেন। দ্বিতীয় পর্যায়ে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হতেই ৭৫ জন পড়ুয়া অন্য কলেজে সূযোগ পেয়ে চলে যান। রামপুরহাটে জেলার প্রথম মেডিক্যাল কলেজে প্রথম বর্ষের পঠনপাঠন শুরুর প্রথম দিনের ক্লাসে বৃহস্পতিবার উপস্থিত ছিলেন ৩৮ জন পড়ুয়া।

মেডিক্যাল কলেজ সূত্রে খবর, শুক্রবার দ্বিতীয় পর্যায়ের ভর্তি প্রক্রিয়ার সময় দেখা যায়, রফি আহমেদ ডেন্টাল কলেজ এবং দুর্গাপুরের বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হওয়া কয়েক জন পড়ুয়া রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হতে এসেছেন। 

কলকাতার বাসিন্দা এক ছাত্রী জানান, মেধাতালিকার ভিত্তিতে এর আগে তিনি বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন। সুযোগ পাওয়ায় সেই কলেজ ছেড়ে রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হলেন। তিনি বলেন, ‘‘রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে এ বছরই প্রথম পঠনপাঠন শুরু হলেও আমার হিসেবে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের থেকে এখানকার পরিকাঠামো ভাল। তাই এখানে ভর্তি হলাম।’’

কলেজের এমএসভিপি সুজয়বাবু জানান, অল ইন্ডিয়া মেডিক্যাল কাউন্সিলের নিয়ম অনুযায়ী এ বছর থেকে প্রথম বর্ষের পড়ুয়াদের এক মাসের ‘ফাঊন্ডেশন কোর্স’-এর মাধ্যমে রোগীদের সঙ্গে ভাল সম্পর্ক গড়ে তোলার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। রোগীদের সঙ্গে কী ভাবে ব্যবহার করা উচিত, তা শেখানো হবে তাতে। তার পরে নিয়ম অনুযায়ী হবে অ্যানাটমি, ফিজিওলজি, বায়োকেমিস্ট্রি এবং কমিউনিটি মেডিসিনের ক্লাস।