দমকল অফিসের কাছে পশু চিকিৎসালয় সংলগ্ন এলাকা জবরদখল মুক্ত করতে পদক্ষেপ করলেন বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। রবিবার, ওই এলাকার একটি চালা ভেঙে দেওয়া হয়। আর একটি চালার নিচে মহিলারা ছিলেন বলে তাঁদের এক দিন সময় দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যেই ওই এলাকা ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সুপার মার্কেট বি কমপ্লেক্সের সামনে কিছুটা ফাঁকা জায়গায় এ ভাবেই জবরদখলকারীরা দখল নিয়েছিলেন। পৌষমেলার পর সেই প্রবণতা আরও বেড়ে যায়। কর্তৃপক্ষের কানে বিষয়টি যেতেই বিশ্বভারতীর চুক্তিভিত্তিক নিরাপত্তাকর্মীদের উপস্থিতিতে এ দিন উচ্ছেদ কাজ চালানো হয়। এ বিষয়ে বিশ্বভারতীর সম্পত্তি আধিকারিক অশোককুমার মাহাতো জানান, বিশ্বভারতীর প্রবেশ মুখ হচ্ছে ওই এলাকা। তাই এলাকাটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে বিশেষ ভাবে উদ্যোগী হয়েছেন তাঁরা। ইতিমধ্যেই পশু চিকিৎসালয়ের পাশে থাকা একটি পরিত্যক্ত বাড়ি সম্পূর্ণ ভেঙে ফেলা হয়েছে। এর পরও ওই এলাকায় নজর থাকবে। গত ১৮ নভেম্বর শান্তিনিকেতন উপ-ডাকঘর সংলগ্ন মার্কেটের দীর্ঘ দিন ধরে বন্ধ থাকা কয়েকটি দোকান ভেঙে দিয়ে জায়গা দখলমুক্ত করেন বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। বিশ্বভারতী থেকে বারবার তাঁদের বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানানো হয়েছিল। এমনকি লোক পাঠিয়েও বলা হয় জবরদখলমুক্ত করতে। কিন্তু কিছুতেই কোনও কাজ হয়নি। শেষ পর্যন্ত গত ১৮ নভেম্বর বন্ধ থাকা সেই দোকানগুলি ভেঙে ফেলা হয়। এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয়েরা। এ ছাড়া উপাচার্যের নির্দেশে স্বচ্ছতা অভিযানও চলছে। বিশ্বভারতীর জনসংযোগ আধিকারিক অনির্বাণ সরকার জানান, আগামী ১০ জানুয়ারি মন্দির প্রাঙ্গণ এবং পিয়ারসন মেমোরিয়াল হাসপাতালে স্বচ্ছতা অভিযান চালানো হবে।