বাংলার প্রত্যন্তে সবুজ ঘেরা এক নাম না-জানা গ্রাম। সেই গ্রামেরই বহুরূপী সম্প্রদায়, যাঁরা ভেক ধরেন কখনও কালীর আবার কখনও বা কৃষ্ণের। জন্মসূত্রে তাঁরা প্রায় প্রত্যেকেই মুসলিম।

সেই গ্রামেরই মেয়ে আসিয়া। ওর বাবা আলিও পেশায় বহুরূপী। আসিয়ার ইচ্ছে, বাবার মতো সে-ও কালী সেজে ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াবে।

কিন্তু ‘মেয়েমানুষ’ বহুরূপী হবে! মানতে পারেন না আলি। ছেলে আসলামকে জোর করেন ‘বহুরূপী’ হওয়ার জন্য। যদিও আসলমের বিশেষ সায় ছিল না তাতে। এ ভাবেই চলছিল...

আসিয়ার ইচ্ছে, বাবার মতো সে-ও কালী সেজে ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াবে।

হঠাৎই বদলে যায় চারপাশ। চেনা মুখগুলো কেমন যেন পাল্টে যেতে থাকে। সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়িয়ে পড়ে সবুজ মাখা ওই গ্রামটিতে। এর পর কী হয়?

চেনা মুখগুলো কেমন যেন পাল্টে যেতে থাকে।

চেনা, সহজ কয়েকটি চরিত্রের সমীকরণ, আশা-হতাশার দোলাচল নিয়েই বুধবার ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে শর্ট ফিল্ম প্রতিযোগিতা বিভাগে নন্দন ৩-এ দেখানো হবে রাজদীপ পাল এবং শর্মিষ্ঠা মাইতি পরিচালিত ছবি ‘কায়ান্তর’।

 

ছবিটি ২৯ মিনিটের। প্রযোজনায় অরোরা ফিল্মস। এ বছর শিকাগো সাউথ এশিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভালে এই ছবি প্রথম দেখানো হয়েছিল।