Advertisement
১৫ জুলাই ২০২৪
Shobdo Jobdo 2024

বাঘে ছুঁলে আঠারো ঘা, বাংলা ছুঁলে একশ আট - রয়ের কলমে ইংরেজি মিডিয়াম এবং বাংলা চর্চা

স্কুলের সময়টুকু বাদ দিলে বাকি সময় বাড়িতে-বাইরে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের খুদে বাঙালির মগজথালায় কী কী ‘বাংলা’ খাবার পড়বে, তার কোনও সিলেবাস নেই।

Shobdo Jobdo 2024.

শব্দ জব্দ ২০২৩-এর খেলায় ব্যস্ত খুদেরা (ইনসেটে রয়)। নিজস্ব চিত্র।

রয়
কলকাতা শেষ আপডেট: ৩১ মে ২০২৪ ১৮:৫৮
Share: Save:

যারা পড়ার বইয়ের বাইরে প্রায় অন্য কিছু পড়েই না, তাদের শব্দভাণ্ডার কি শব্দ-জব্দ খেলার পক্ষে যথেষ্ট?

শব্দ-জব্দ নিয়ে গত দু’বছরে আমি অন্তত ১০০-১২০টা স্কুলে গিয়েছি। সারা বছর ধরেও ‘শব্দবাজি’-র কাজ নিয়ে স্কুলে স্কুলে যাই– সেই শব্দবাজি, যার বাংলা শব্দের খেলাগুলো শব্দ-জব্দর জন্য সাজিয়ে-গুছিয়ে খুদেদের খেলার উপযুক্ত করে তুলি আমরা; এবং এই স্কুলে স্কুলে, ক্লাসে ক্লাসে গিয়ে, ওদের সঙ্গে কথা বলে টের পেয়েছি–বাংলা ভাষা নিয়ে বিশেষ কোনও আগ্রহ ওদের অনেকের মধ্যেই নেই।

যারা ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে পড়ে, তারা সারা বছর সব কিছু ইংরেজিতে পড়ে, খালি বাংলাটা বাংলায় পড়ে। ফলে ওদের চোখ-কান ইংরেজি শব্দের বানান, মানে, উচ্চারণ, ব্যবহারে অনেক বেশি অভ্যস্ত। ওদের বাঘে ছুঁলে আঠারো ঘা, বাংলা ছুঁলে একশ আট– যেন আগুন, ভয় ছয়-গুণ! ওরা বাংলা বানান, তার চিহ্ন, যুক্তাক্ষর ইত্যাদির সামনে সুকুমার রায়ের সৎপাত্র–গঙ্গারাম হয়ে যায়! উনিশটিবার ‘বাংলা-বানানে’ সে, ঘায়েল হয়ে থামল শেষে! এতে ওদের দোষ প্রায় নেই বললেই চলে।

স্কুলে ওরা বাংলা পড়ে দিনে এক বার। এবং বাংলা শব্দের চেয়ে ইংরেজি শব্দগুলো ওদের চোখ-কান-জিভে অনেক বেশি যাতায়াত করে। ফলে ইংরেজি শব্দে ওরা অনেক বেশি অভ্যস্ত। ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে এটাই স্বাভাবিক। খুদে পড়ুয়ার মাতৃভাষা বাংলা-হিন্দি বা অন্য যা-ই হোক না কেন, সেটা স্কুলে বলার, শোনার, পড়ার সুযোগ সিলেবাসে খুব কম। ফলে চর্চা সে ভাবে না হওয়ায়, মগজের ছোট্টবেলার বাংলা শব্দপুকুর বিন্দুতে বিন্দুতে বড়বেলার শব্দসিন্ধু হয়ে ওঠার সুযোগ পায় না।

স্কুলের সময়টুকু বাদ দিলে বাকি সময় বাড়িতে-বাইরে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের খুদে বাঙালির মগজথালায় কী কী ‘বাংলা’ খাবার পড়বে, তার কোনও সিলেবাস নেই। নেই বলেই সেই খুদে বাঙালি তার না-স্কুল পরিবেশে যা পাবে, তা-ই খাবে। সেটা যদি পরিবার-বন্ধু-কোচিং-আড্ডাপ্রভাবে বেশিটাই ইংরেজিতে হয়, তাহলে তার বাংলা শব্দ-জ্ঞানের কলসিতে প্রচুর বাংলা-পাথর ফেলতে হবে। তবেই সে বাংলা-জল তার নিজের পান করার, এবং pun করার কাজে লাগবে। শব্দ নিয়ে খেলায় তবেই সে খুদে বাঙালি ঠিকঠাক খেলোয়াড় হতে হতে পোড় খাওয়া শব্দবাজ হয়ে উঠবে। বাজি রেখে বলতে রাজি, এই কাজটা মোটেই অসম্ভব বা কঠিন নয়।

ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের ক্যানভাসটা খানিকটা ক্লিয়ার হল। বাংলা মাধ্যম স্কুলের পটচিত্রটা কতটা ‘পষ্ট’?

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE