• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ছুরি নিয়ে হানা, ইংল্যান্ডে হত ৩

uk
ঘটনাস্থল ঘিরে রেখেছে পুলিশ।—ছবি সংগৃহীত।

ইংল্যান্ডের রিডিং শহরের এক ভিড়ে ঠাসা পার্কে শনিবার সন্ধেবেলা ছুরি হামলায় তিন জন নিহত হন। আজ ওই ঘটনাটিকে ‘সন্ত্রাসবাদী হামলা’ বলেছেন তদন্তকারীরা। জোরদার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

শহরের বুকে ফরবেরি গার্ডেনস অঞ্চলের ওই ঘটনায় আততায়ীর ছুরির আঘাতে জখম হন মোট ছ’জন। তাঁদের মধ্যে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাস্থলের কাছ থেকেই বছর ২৫-এর এক সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ এখনও তার পরিচয় প্রকাশ করেনি। আর এক সন্দেহভাজনের খোঁজ চলছে।

এই হামলার পরিপ্রেক্ষিতে রবিবার সকাল ৯টা নাগাদ নিজের বাসভবনে মন্ত্রী, নিরাপত্তা আধিকারিক এবং পুলিশ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। যে পুলিশকর্মীরা পর্যাপ্ত অস্ত্র ছাড়াই সশস্ত্র আততায়ীকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করেন তাঁদের বিশেষ অভিবাদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন: মার্কিন ভিসায় ফের কড়াকড়ি!

ঘটনার সময়ে ওই পার্কেই উপস্থিত ছিলেন লরেন্স ওর্ট নামে বছর কুড়ির এক যুবক। তাঁর কথায়, ‘‘তখন পার্কে বেশ ভিড় ছিল। হঠাৎ এক যুবক সেখানে ঢুকে জোরে কিছু একটা আওড়াতে শুরু করে এবং জনা দশেকের একটি দলের উপর ছুরি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তিন জনের গলায় এবং হাতের নীচে গভীর ক্ষত দেখেছিলাম। এর পরে হঠাৎ আমাদের দিকে ছুটে আসতে থাকে যুবকটি। আমরাও ছুটতে থাকি। তখন অন্য এক জনকে ঘাড়ে ছুরি মারে সে। তার পরে তাকে পার্ক থেকে বেরিয়ে যেতে দেখি।’’

আপাতত ওই এলাকায় কাউকে যেতে নিষেধ করে দেওয়া হয়েছে পুলিশের তরফে। প্রতক্ষ্যদর্শীদের তদন্তে সাহায্য করার আর্জি জানানো হয়েছে। কারও কাছে ঘটনার ভিডিয়ো ফুটেজ রয়েছে কি না, তারও খোঁজ চালানো হচ্ছে।

মেট্রোপলিটন পুলিশের অ্যাসিসট্যান্ট কমিশনার তথা ব্রিটিশ পুলিশের সন্ত্রাসবিরোধী শাখার প্রধান নীল বসু জানান, এখনও পর্যন্ত ৪১ জন প্রতক্ষ্যদর্শীর সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। হামলার উদ্দেশ্য নিয়ে এখনও নির্দিষ্ট ভাবে কিছু বলতে না পারলেও সন্ত্রাস-যোগের বিষয়টি নিশ্চিত বলেই জানিয়েছেন নীল। পুলিশ রেকর্ড অনুযায়ী এর আগেও ধৃত যুবকটিকে একবার গ্রেফতার করা হয়েছিল। তবে খুব সাধারণ একটি আইনভঙ্গের অভিযোগে। কোনও সন্ত্রাস-যোগ ছিল না তখন।

হামলার ঘটনাটির কিছু আগে ওই পার্কে ‘ব্ল্যাক লাইভ্স ম্যাটার’ সংক্রান্ত যে শান্তিপূর্ণ প্রদর্শন হয়েছিল তার সঙ্গে এর কোনও যোগাযোগ নেই বলেই জানিয়েছেন নীল। তাঁর কথায়, ‘‘জনবহুল এলাকায় ঝুঁকি রয়েছে বলে গুজব ছড়ালেও গোয়েন্দাদের তরফে তেমন কোনও ইঙ্গিত মেলেনি। তবে বাইরে বেরোলে সতর্ক থাকুন। অযথা আতঙ্কিত হবেন না।’’ 

এ দিকে আমেরিকার মিনিয়াপোলিসের রাস্তায় রবিবার বন্দুকবাজের হামলায় নিহত হয়েছেন এক জন। জখম ১১। যদিও তাঁদের আঘাত গুরুতর নয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ফুটেজে দেখা গিয়েছে, রাস্তায় জখম অবস্থায় পড়ে রয়েছেন এক জন। তাঁকে ঘিরে সাহায্যের আর্তি জানাচ্ছেন অনেকে। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতারের খবর জানানো হয়নি পুলিশের তরফে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন