Advertisement
০৪ ডিসেম্বর ২০২২

আইসিসি-র ইঙ্গিত, শান্তি রক্ষার দায় দুই ক্যাপ্টেনের

ধর্মশালায় ফয়সালার টেস্টের আগে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া— যুযুধান দুই দলের মধ্যে পরিস্থিতি ফের অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠলেও এ নিয়ে আর হস্তক্ষেপ করবে না আইসিসি।

নিজস্ব সংবাদদাতা
শেষ আপডেট: ২৩ মার্চ ২০১৭ ০৩:৪৮
Share: Save:

ধর্মশালায় ফয়সালার টেস্টের আগে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া— যুযুধান দুই দলের মধ্যে পরিস্থিতি ফের অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠলেও এ নিয়ে আর হস্তক্ষেপ করবে না আইসিসি।

Advertisement

বিশ্বস্ত সূত্রের খবর, ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার পক্ষ থেকে ম্যাচ রেফারি রিচি রিচার্ডসন দুই অধিনায়কের সঙ্গে ইতিমধ্যেই কথা বলে নিয়েছেন। এক দিকে রিচার্ডসন শান্তির দূত হয়ে বিরাট কোহালি ও স্টিভ স্মিথ-কে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন। অন্য দিকে, অধিনায়কদের নিয়ে আইসিসি-র কঠোর আচরণবিধির কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। নরমে-গরমে সেই বৈঠকের পরেই আইসিসি ঠিক করে নিয়েছে, আর মুখে কিছু বলা হবে না কাউকে। দুই অধিনায়ক এবং তাঁদের দলের সদস্যরা শুনলে ভাল। না হলে কেউ সীমানা অতিক্রম করলেই প্লেয়ার্স কোড অব কনডাক্ট প্রয়োগ করা হবে। ধৌলাধার পাহাড়ের গায়ে তাই রিচার্ডসন আর কোনও চা-চক্রে ডাকবেন না কোহালি, স্মিথ-কে।

সিরিজে এখনও পর্যন্ত দুই অধিনায়কের দিক থেকেই বেশ কয়েক বার আগ্রাসী মন্তব্যের বিস্ফোরণ ঘটেছে। জানা গিয়েছে, একান্ত বৈঠকে ম্যাচ রেফারি রিচার্ডসন সেটাও বলেছেন তাঁদের। আইসিসি আচরণবিধি অনুযায়ী, মাঠে বিতর্কের ফুলকি উড়তেই থাকলে, সব চেয়ে বেশি দায় বর্তায় অধিনায়কদের ঘাড়ে। কোড অব কন্ডাক্টে এটা পরিষ্কার বলাই আছে।

সমস্যা হচ্ছে, শান্তি লাও তো বটে কিন্তু আনে কে! রাঁচীতেও কোহালি বনাম স্মিথ কথার যুদ্ধ ছড়িয়েছে। ধর্মশালার আগে পারদ আরও চড়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। রাঁচীতে ভারতীয় দলের ফিজিও প্যাট্রিক ফারহাটকে নিয়ে অস্ট্রেলীয়রা স্লেজিং করছিল বলে অভিযোগ জানান বিরাট। পাল্টা জবাব দিয়েছেন স্মিথ। আইসিসি মনে করছে, এখনও কোহালি বা স্মিথ সীমানা অতিক্রম করেননি। তবে যে ভাবে ধর্মশালার ঠান্ডা, মনোরম পাহাড়ি পরিবেশেও উত্তাপ বাড়ছে, কী হবে কেউ জানে না। ফের কোহালিকে নিয়ে কটূ মন্তব্য করে বসেছেন স্মিথদের বোর্ডের সিইও জেমস সাডারল্যান্ড। তার উত্তরে আবার ভারতীয় বোর্ড কোনও মন্তব্য করে কি না, সেটা দেখার।

Advertisement

আরও পড়ুন : বিরাটও বলুক না, তোরাই তো অভব্যতাটা শেখালি

দু’দেশের মধ্যে তিক্ততা এমনকী, প্রেস বক্স পর্যন্ত গড়িয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের একাংশে বুধবার গুরুতর অভিযোগ বেরিয়েছে যে, অস্ট্রেলিয়া দলের মিডিয়া ম্যানেজার ড্রেসিংরুম থেকে খবর নিয়ে সে দেশের সংবাদমাধ্যমে স্মিথদের সুবিধে মতো পরিবেশন করছেন। এত দিন ধরে এত সিরিজ হচ্ছে ভারতের মাটিতে। কখনও কোনও বিদেশি বা অতিথি মিডিয়া ম্যানেজারকে নিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রশ্ন ওঠা নজিরবিহীন।

অস্ট্রেলীয় মিডিয়া ম্যানেজার অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তাতে সিরিজ কভার করতে থাকা ভারতীয় মিডিয়ার কেউ কেউ আবার টিপ্পনী কেটেছেন, ‘‘অস্বীকার করেছে মানেই ঠিক খবর।’’ মনে করা হচ্ছে, মাঠের মতো ধর্মশালার প্রেস বক্সেও ম্যাচ চলবে দু’দেশের।

এমনিতে বিরাট কোহালির সঙ্গে তাঁর নিজের দেশের মিডিয়ার কখনও মধুচন্দ্রিমা ছিল বলে খবর নেই। কিন্তু চলতি সিরিজে তিনি অভাবনীয় ভাবে দেশের সংবাদমাধ্যমকে পাশে পেয়ে গিয়েছেন। অস্ট্রেলীয় মিডিয়ার তাঁকে ক্রিকেটের ডোনাল্ড ট্রাম্প হিসেবে তুলে ধরার ঘটনা সর্বত্র সমালোচিতই হচ্ছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.