Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২০ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied

লাইফস্টাইল

ভারতে সাপ্তাহিক ছুটি রবিবারেই কেন থাকে? কারণ জানলে অবাক হবেন

নিজস্ব প্রতিবেদন
০২ ডিসেম্বর ২০১৮ ১১:৪৫
রবিবার মানেই ছুটির আমেজ। মজা, আড্ডা আর শুধুই গল্প! সারা সপ্তাহ কাজের পর আমরা এই দিনটার অপেক্ষাতেই থাকি। জমিয়ে খাওয়া, ঘুম আর আলসেমিতে দিনটা কাটানো। সানডে মানেই ‘ফান ডে’। কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন কেন রবিবারেই ছুটি থাকে?

বেশির ভাগ ছুটিই কেন রবিবারে হয়, এর পিছনে একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ আছে। বলতে পারেন ইতিহাসও জড়িত।ভারতে ব্রিটিশ শাসনকাল থেকেই রবিবারে সাপ্তাহিক ছুটির উত্পত্তি। তবে সহজে কিন্তু এই ছুটি অর্জিত হয়নি।
Advertisement
ব্রিটিশ ভারতে কারখানায় শ্রমিকদের সপ্তাহের সাত দিনই কাজ করতে হত। ছুটি মিলত না। সেখানে প্রতি রবিবার ব্রিটিশ অফিসাররা গির্জায় প্রার্থনা করতে যেতেন। ফলে ওই দিন শুধু তাঁদেরই ছুটি থাকত। কিন্তু শ্রমিকদের জন্য এমন কোনও নিয়ম ছিল না।

 সে সময় শ্রমিকদের এক নেতা ছিলেন শ্রীনারায়ণ মেঘাজি লোখান্ডে। মহারাষ্ট্রের ঠাণের বাসিন্দা। তাঁকে শ্রমিক আন্দোলনের পথিকৃত বলা হয়।
Advertisement
লোখান্ডে ব্রিটিশ আধিকারিকদের বলেন, দেশ ও দশের সেবা করার জন্য শ্রমিকদের সপ্তাহে এক দিন ছুটি প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন, রবিবার হিন্দু দেবতা ‘খান্ডোবা’র দিন। তাই শ্রমিকদের ওই দিন সাপ্তাহিক ছুটি জরুরি।

লোখান্ডে ব্রিটিশদের কাছে প্রস্তাব দেন ৬ দিন কাজের পর সপ্তাহে একটা দিন ছুটি দেওয়া দরকার শ্রমিকদের। ওঁদেরও অবকাশের প্রয়োজন।

তবে লোখান্ডের এই প্রস্তাব সরাসরি খারিজ করে দিয়েছিল ব্রিটিশ আধিকারিকরা। কিন্তু লোখান্ডে হার মানেননি। এই দাবি আদায়ে শ্রমিকদের নিয়ে প্রায় সাত বছর লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন।

লোখান্ডে ও শ্রমিকদের দাবির কাছে হার মানে ব্রিটিশ সরকার। অবশেষে ১৮৯০ সালের ১০ জুন রবিবারকে শ্রমিকদের জন্য সাপ্তাহিক ছুটির দিন হিসেবে ঘোষণা করে ব্রিটিশ সরকার।

উনবিংশ শতাব্দীতে ভারতের বস্ত্র কারখানায় কার্যপদ্ধতিতে পরিবর্তন আনায় শ্রীনারায়ণ মেঘাজি লোখান্ডের অনবদ্য ভূমিকা আছে। তিনি মহাত্মা জ্যোতিরাও ফুলের সহযোগী ছিলেন। ভারতের প্রথম শ্রমিক সংগঠন ‘বম্বে মিল হ্যান্ডস অ্যাসোসিয়েশন’ চালু করেন লোখান্ডে।

লোখান্ডের কারণেই শ্রমিকরা রবিবার সাপ্তাহিক ছুটি পান। কাজের মাঝে আধ ঘণ্টা খাওয়ার সময় এবং প্রতি মাসের ১৫ তারিখে শ্রমিকদের মাইনের ব্যবস্থা তাঁর কারণেই হয়েছে।

মজার বিষয় যেটা তা হল, ব্রিটিশরা দেশ ছেড়ে চলে গিয়েছে। ভারতে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে। কিন্তু ব্রিটিশদের থেকে আদায় করে নেওয়া সাপ্তাহিক ছুটিটি অপরিবর্তিতই থেকে গিয়েছে। ভারত সরকারও সেই নিয়ম আর বদলায়নি। ফলে সেই থেকেই রবিবার সাপ্তাহিক ছুটি হিসেবেই চলে আসছে।