• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ইভিএম নিয়ে হাজার নালিশ, সতর্ক কংগ্রেস

EVM
মধ্যপ্রদেশে সাগর জেলায় ভোট শেষ হওয়ার ৪৮ ঘণ্টা পর কালেকশন সেন্টারে পৌঁছেছে ইভিএম। বিজেপির বিরুদ্ধে ভোট কারচুপির অভিযোগ তুলেছে কংগ্রেস। ছবি: পিটিআই।

যন্ত্রে ভোটের ফল নিয়ে আগে সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন প্রায় সব বিরোধী দলই। তার পরেও নির্বাচন কমিশনের দাবি, এতে কারচুপি সম্ভব নয়। কিন্তু পাঁচ রাজ্যের ভোটেও ইভিএম নিয়ে উঠেছে নানা অভিযোগ। নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহদের অস্বস্তি বাড়িয়ে ইভিএম-বিরোধিতাও ক্রমশ একজোট করছে বিরোধীদের। 

তেলঙ্গানার ভোট এখনও পাঁচ দিন বাকি, কিন্তু রাহুল গাঁধীকে পাশে নিয়ে চন্দ্রবাবু নায়ডু আগাম সতর্ক করেছেন, কারচুপি হতে পারে। স্ট্রংরুমের সামনে মাটি কামড়ে পড়ে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন রাহুল। মধ্যপ্রদেশের ভোটের দিনই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ভোটযন্ত্রে ত্রুটি হলে কমিশনকে দায় নিতে হবে। সরব সীতারাম ইয়েচুরি থেকে অরবিন্দ কেজরীবালেরাও। সামনের সপ্তাহে বিরোধী দলের বৈঠকেও এ বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা হবে।

লোকসভায় ইভিএমের বদলে ব্যালটে ভোট করানোর দাবি আগেই তুলেছে কংগ্রেস। কাল কংগ্রেসের এক প্রতিনিধি দল দিল্লিতে কমিশনের কাছেও যান নালিশ জানাতে। মণীশ তিওয়ারি বলেন, ‘‘হারের ভয়ে ভোটের পর ইভিএমে ব্যাপক কারচুপি করতে মরিয়া বিজেপি।’’ 

অভিযোগ উঠেছে, ছত্তীসগঢ়ে এ বারের ভোটে কমিশনের হিসেবের পরেও রাজ্যের বিজেপি সরকার ইভিএমে পড়া ভোটের অঙ্ক আরও ৪৬ হাজার বাড়িয়ে দেখিয়েছে। তা-ও সেই সব আসনে, যেখানে গত ভোটে কংগ্রেস-বিজেপির ফারাক ছিল সামান্য। মধ্যপ্রদেশে তো ভোটের দিনই ৩ শতাংশ ইভিএমে গরমিল দেখা যায়। আর ভোটের পর ইভিএম পাওয়া যাচ্ছে বিজেপি নেতার হোটেলের ঘরে। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় স্ট্রং-রুমের ভিতরের ‘লাইভ-ভিডিয়ো’ও বন্ধ থেকেছে দেড় ঘণ্টা। দু’দিন পরে নম্বর প্লেট ছাড়া স্কুলবাসে এসে পৌঁছেছে ইভিএম। এর আগে কর্নাটকের গ্রামে মিলেছিল ইভিএমের বাক্স। তাতে ঠাসা জামাকাপড়। 

নির্বাচন কমিশন অবশ্য আশ্বস্ত করেছে, যে ইভিএম আসছে, সেগুলিতে ভোট নেওয়া হয়নি। আজ মধ্যপ্রদেশের রেওয়ার জেলাশাসক প্রীতি মৈথিল নায়ক বলেন— স্ট্রংরুমের কাছে কেউ এলেই গুলি করা হবে। এই ভোটের জন্য তিনি 

নিজের ‘কেরিয়ার’-কে বাজি ধরতে পারেন না। 

কিন্তু বিরোধীরা অসন্তুষ্ট। আপেএর সৌরভ ভরদ্বাজ আগেই দেখিয়েছিলেন, ১৫-২০ মিনিট সময়  হাতে পেলেই ইভিএম বদলে দেওয়া যায়। গত বছর মধ্যপ্রদেশের ভিন্দেই কমিশন নতুন ‘ভিভিপ্যাট’-এর কাজ দেখাতে গিয়ে বিপাকে পড়ে। যন্ত্রে যে বোতামই টেপা হচ্ছিল, ভোট পড়ছিল পদ্মফুলে। 

সদ্য প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ও পি রাওয়তের অবশ্য দাবি— ‘‘ইভিএমে কারচুপি অসম্ভব।’’ প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এস কৃষ্ণমূর্তিরও একই মত। তবে তাঁর বক্তব্য, ‘‘ইভিএম-এর হেফাজত নিয়ে প্রশাসনিক গলদ থাকলে সুষ্ঠু তদন্ত দরকার। না হলে কমিশনের ভাবমূর্তি খারাপ হবে।’’ 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন