• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

‘ব্লু হোয়েলে ঢোকা যায়, বেরনো যায় না’, সুইসাইড নোটে লিখে আত্মঘাতী ছাত্র

Blue Whale
হাত কেটে তিমির ছবি এঁকেছিল বিজ্ঞেশ।

কিছুতেই যেন থামছে না ব্লু হোয়েল আতঙ্ক। মহারাষ্ট্র, কেরল, উত্তরপ্রদেশের পরে এ বার তামিলনাড়ুতেও এই মারণ গেম খেলতে গিয়ে আত্মঘাতী হলেন এক ছাত্র। আত্মঘাতী হওয়ার আগে সুইসাইড নোটে ১৯ বছরের এই ছাত্র লেখেন, ব্লু হোয়েলে ঢোকা যায়, বেরনো যায় না।

বুধবার বিকেল সওয়া ৪টে নাগাদ নিজের বাড়িতে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেন মাদুরাইয়ের তিরুমঙ্গলম এলাকার বাসিন্দা বিজ্ঞেশ। মুন্নার কলেজে বাণিজ্য বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন তিনি। পুলিশ জানিয়েছে, ব্লু হোয়েলের নয়া শিকার তিনি। বিজ্ঞেশের হাতে তিমির ছবি আঁকা ক্ষত পাওয়া গিয়েছে।

আরও পড়ুন: ব্লু হোয়েলে মামলা হচ্ছে না এখনই

ঘটনাস্থল থেকেই উদ্ধার হয়েছে বিজ্ঞেশের সুইসাইড নোটটিও। তাতে লেখা, ‘‘ব্লু হোয়েল— এটা কোনও গেম নয়, এটা সাক্ষাৎ বিপদ। তুমি এতে প্রবেশ করতে পারবে, কিন্তু কখনওই এর থেকে বেরতে পারবে না।’’

আত্মঘাতী সেই ছাত্র

কিছু দিন ধরেই তাঁর আচরণে অস্বাভাবিকতা লক্ষ করছিলেন বলে জানিয়েছেন তাঁর বন্ধুরা। এমনকী বিজ্ঞেশের এক বন্ধু পুলিশকে জানিয়েছিলেন, স্বাভাবিকের থেকেও অনেক বেশি সময় মোবাইলের পিছনে ব্যয় করছেন তাঁর বন্ধু। বিজ্ঞেশ ব্লু হোয়েলের গেমের শিকার বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন ওই বন্ধু। কিন্তু তাঁর অভিযোগ, পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি।

আরও পড়ুন: ব্লু হোয়েলের গুগল সার্চে বিশ্বে সবার উপরে কলকাতা!

তামিলনাড়ুতে ব্লু হোয়েলে মৃত্যুর ঘটনা এই প্রথম। এ মাসেই এই মারণ খেলার নেশায় প্রাণ হারিয়েছেন মহারাষ্ট্র, কেরল ও উত্তরপ্রদেশের তিন জন। প্রশাসনের তরফে অভিবাবকদের অনুরোধ করা হয়েছে সন্তানদের অনলাইন কার্যকলাপের উপর নজর রাখতে। রাশিয়াতে জন্ম এই মারণ অনলাইন গেমসে এখনও পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে শতাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন