পরিকাঠামো ক্ষেত্রে আরও মার্কিনি বিনিয়োগ আসুক। রেল থেকে সড়ক, বন্দর থেকে শক্তিক্ষেত্র— কোনওটাই সেই বিনিয়োগ আওতার বাইরে রাখতে চাইছে না কেন্দ্র। সোমবার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি তেমনটাই ইঙ্গিত দিলেন।

নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত একাদশ ভারত-মার্কিন অর্থনৈতিক শীর্ষ বৈঠকে এ দিন জেটলি পরিকাঠামো ক্ষেত্রে আরও বেশি মার্কিনি বিনিয়োগের আহ্বান জানান। এ জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের যা যা করণীয়, ইতিমধ্যেই তার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। জেটলি বলেন, ‘‘পরিকাঠামো ক্ষেত্রে ভারতে বিনিয়োগের যে বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে, মার্কিন বিনিয়োগকারীরা পুরোপুরি তার ব্যবহার করতে পারেন।’’ রেল, সড়ক, বন্দর এবং দূষণহীন শক্তি ক্ষেত্রে আরও বিনিয়োগ বাড়ানোর আহ্বান করেন তিনি। এর ফলে দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ বেড়ে ৫০০ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছতে পারেও বলে আশা প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী। এ দিনের বৈঠকে হাজির ছিলেন ভারতে কর্মরত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রিচার্ড বর্মা।

ভারত কেন এখন মার্কিনি বিনিয়োগের পক্ষে অনুকূল জায়গা? এ দিন তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন জেটলি। তিনি জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই কর ব্যবস্থার সরলীকরণের কাজ এ দেশে শুরু হয়েছে। সহজতর করা হয়েছে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের ব্যবসা শুরুর প্রক্রিয়াও। দ্রুততর হয়েছে লাইসেন্স, অনুমতি, অনুমোদনের ধাপগুলি। পাশাপাশি তিনি মনে করিয়ে দেন, কেন্দ্রীয় সরকার বদলে গেলেও নীতি বদলানোর চল আর এ দেশে নেই।

মার্কিন বিনিয়োগকারীদের আরও একটি চিন্তা দূর করতে জেটলির দাবি, বিশ্ব অর্থনীতির সাম্প্রতিক টালমাটাল অবস্থারও তেমন কোনও ছাপ পড়েনি এ দেশে। তেল ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের দাম কমে যাওয়ায়, সরকার পরিকাঠামো ও সামাজিক ক্ষেত্রে উন্নয়নের কথা ভাবতে পারছে বলেও দাবি করেন তিনি।