নাসা, সিআইএ, এফবিআই— বিশ্বের তাবড় তাবড় সংস্থাকে তুড়ি মেরে হারিয়ে দিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। এর আগে নিজেদের সাফল্যের মুকুটে অনেক পালক যোগ করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। এ বার সেই মুকুটে যোগ হল আরও একটি নতুন পালক।
কী ভাবে? সৌজন্যে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুক।
পিপল টকিং অ্যাবাউট দ্যাট (পিটিএটি) র‌্যাঙ্কিংয়ের বিচারে জনপ্রিয়তার নিরিখে শীর্ষস্থান লাভ করেছে সেনাবাহিনীর ফেসবুক পেজটি। ফেসবুকের যে পেজটি নেটিজেনরা সবচেয়ে পছন্দ করছে অথবা সবচেয়ে বেশি বার সেই পেজে ভিজিট করছে, এই সমীক্ষার উপর ভিত্তি করেই বেছে নেওয়া হয় পিটিএটি র‌্যাঙ্কিং। সেনা সূত্রে খবর, এই সাফল্য সেনাবাহিনীর সোশ্যাল মিডিয়ার জন্য একটি বড় ব্যাপার! এর থেকেই প্রমাণ হয় সাধারণ মানুষের কাছে ধীরে ধীরে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠছে সেনার এই প্রচেষ্টা। মাত্র দু’মাস আগেও সরকারি সংস্থার ক্যাটাগরিতে জনপ্রিয়তা নিরিখে প্রথম হয় ভারতীয় সেনাবাহিনীর ফেসবুক পেজটি। এই নিয়ে দু’বার জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠলেন সেনারা।
২০১৩ সালে ১ জুন ফেসবুকে অফিসিয়াল অ্যাকাউন্ট খোলে সেনাবাহিনী। ইতিমধ্যেই ফলোয়ারের সংখ্যা ৩০ লাখ ছুঁই ছুঁই। অন্য সোশ্যাল মিডিয়া টুইটারেও খাতা খুলেছেন ভারতীয় সেনারা। সেনাবাহিনীর টুইটার হ্যান্ডেলের ফলোয়ারের সংখ্যা প্রায় পৌনে পাঁচ লাখ। প্রতি সপ্তাহে ভারতীয় সেনাবাহিনীর অফিসিয়াল ওয়েব সাইট ভিজিট করেন প্রায় ২৫ লাখ জন।