তোপের মুখে পড়ে ডিগবাজি খেলেন বীরেন্দ্র সহবাগ। গুরমেহের কউরকে কটাক্ষ করার পর, সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রবল সমালোচনার মুখে পড়ে বদলেই ফেললেন নিজের বয়ান। বললেন, “গুরমেহেরকে লক্ষ করে নয়, নিছকই মজা করেই ওই টুইট করা। মানুষজন তা অন্য ভাবে নিয়েছেন।” শুধু সহবাগও নন, গুরমেহেরেরকে খোঁচা দিয়ে টুইট করেন অলিম্পিক পদক জয়ী যোগেশ্বর দত্ত। এ দিন ওই দুই তারকাকেই একহাত নিয়েছেন কবি ও গীতিকার জাভেদ আখতার। জাভেদ বলেন, “অর্ধশিক্ষিত কোনও খেলোয়াড় বা কুস্তিগীর এক জন শান্তিপ্রিয় শহিদ-কন্যাকে ট্রোল করছেন, সেটা তো বোঝা গেল। কিন্তু, শিক্ষিত মানুষজনের একাংশের কী হয়েছে?” আর এর পরই শুরু হয়েছে নয়া বিতর্ক। সোশ্যাল মিডিয়ায় এ বার জাভেদের বিরুদ্ধে একের পর এক তির ধেয়ে আসতে শুরু করেছে।

পদ্মশ্রী সম্মানপ্রাপ্ত জাভেদকে উদ্দেশ করে অভিনেতা পরেশ রাওয়াল টুইট করেন, “সুতরাং, জাভেদ সাহেব, এক জন সামান্য শিক্ষিত ভারতীয় বা মানুষেরও বেঁচে থাকার অধিকার রয়েছে, স্বাধীনতার অধিকার রয়েছে... নাকি এ নিয়ম কেবলমাত্র তাঁদের জন্যই প্রযোজ্য?”

আরও পড়ুন

সানাইয়ের সুরে হোম ছাড়লেন যমুনা

গত সপ্তাহে এবিভিপি-র বিরুদ্ধে গুরমেহেরের প্রতিবাদী টুইটের পর সমালোচনার মাঝেই শুরু হয় নতুন বিতর্ক। কার্গিলের যুদ্ধে নিহত ক্যাপ্টেন মনদীপ সিংহের মেয়ে গুরমেহের টুইট করেন, “আমার বাবাকে পাকিস্তান মারেনি, মেরেছে যুদ্ধ।” সেই টুইটের পর গুরমেহেরের সমর্থন ও বিরোধিতায় মুখ খোলেন অনেকে। বিরোধিতা করেন বীরেন্দ্র সহবাগ, যোগেশ্বর দত্ত ও রণদীপ হুডা-সহ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডু, কিরেণ রিজিজুরা। কটাক্ষ করে বীরেন্দ্র সহবাগ টুইট করেন, “আমি নয়, আমার ব্যাট দু’টি তিনশো করেছে।” সোশ্যাল মিডিয়ার ট্রোল করা ছাড়াও ধর্ষণেরও হুমকি পান বলে অভিযোগ করেন লেডি শ্রীরাম কলেজের ২০ বছরের ছাত্রী গুরমেহের। এমনকী, কার্গিল শহিদের মৃত্যুর ধরন নিয়েও কুরুচিকর মন্তব্য করা হয়। এ দিন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে এবিভিপি-র ‘গুন্ডারাজে’র বিরুদ্ধে মিছিলে যোগ না দিলেও প্রতিবাদীদের অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেন তিনি।

আরও পড়ুন

খদ্দের হারানোর আশঙ্কা, ৩০৩ টাকার কমেও প্রাইম প্ল্যান রাখছে জিও