ব্যবস্থা নিচ্ছে কমিশন
ক্ষুব্ধ প্রতিমাদেবী আজ বলেন, ‘‘সিপিএম-কংগ্রেসের প্রতীক সম্বলিত গেঞ্জি পরলেই তো কমিশন পারে!’’
Election commission

ভোটে হিসাব বহির্ভুত টাকা উদ্ধারে কড়া নজর কমিশনের।

গত ১১ এপ্রিল পশ্চিম ত্রিপুরা লোকসভা আসনের রিটার্নিং অফিসার বেশ কয়েকজন পোলিং এজেন্ট এবং যারা ভোট দানে বাধা দিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দিয়েছেন। গতকালই এই মর্মে তিনি নির্দেশ জারি করে সংশ্লিষ্ট সহকারী রিটার্নিং অফিসারদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। আর এই নির্দেশ আসতেই রাজ্য বিজেপি নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাতে শুরু করেছে।

নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন ওই আসনের বিজেপি প্রার্থী প্রতিমা ভৌমিক। ক্ষুব্ধ প্রতিমাদেবী আজ বলেন, ‘‘সিপিএম-কংগ্রেসের প্রতীক সম্বলিত গেঞ্জি পরলেই তো কমিশন পারে!’’ তাঁর মতে, নির্বাচন কমিশন ‘বেকুব’-এর মতো কাজ করছে। তাঁর অভিযোগ, ‘‘বিরোধীরা নির্বাচন কমিশনের কাছে 

এসএমএস করে অভিযোগ করলেও তারা দৌড়য়। কিন্তু বিজেপির তরফে একশোরও বেশি অভিযোগ তাদের জানানো হয়েছ। কমিশন সে ব্যাপারে কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

উল্লেখ্য, গতকাল পশ্চিম আসনের রিটার্নিং অফিসার তথা পশ্চিম ত্রিপুরার জেলাশাসক সন্দীপ এন মাহাত্মে পাঁচ সহকারী রিটার্নিং অফিসারকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন, ‘‘দোষী পোলিং এজেন্টদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে হবে।’’ লোকসভা আসনটির যে সব বুথের পোলিং এজেন্ট এবং অন্য যারা ভোটারদের বাধা দিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে ভোট কেন্দ্র দখল করার অভিযোগে জনপ্রতিনিধিত্ব আইনের ১৩৫এ ধারায় মামলা করে তার অগ্রগতি সম্পর্কে রিপোর্ট রিটার্নিং অফিসারের কাছে পাঠাতে বলেছেন তিনি।

এই পোলিং এজেন্টরা কোন দলের, সে সম্পর্কে রিটার্নিং অফিসার কিছু বলেননি। কংগ্রেস ও সিপিএম নেতৃত্বের দাবি, স্বাভাবিক ভাবেই এরা শাসক দলের কর্মী-সমর্থক।

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত