তৃতীয় দফায় খলনায়ক সেই ইভিএম
মহারাষ্ট্র থেকে গোয়া, কেরল— দেশের নানা প্রান্তে বিরোধী নেতাদের অভিযোগ, বিস্তর কারচুপি করা হয়েছে ইভিএমে। বিরোধীদের অভিযোগ, কংগ্রেস বা অন্য বিরোধী দলের চিহ্নে বোতাম টিপলেই ভোট চলে যাচ্ছে বিজেপির দিকে!
vote

প্রতীকী ছবি।

প্রথম দু’দফার ভোটেও অভিযোগটা উঠেছিল বিক্ষিপ্ত ভাবে। গুজরাত এবং কেরলের সব কেন্দ্র-সহ লোকসভা নির্বাচনের তৃতীয় দফার ১১৭টি কেন্দ্রের ভোটে সেই অভিযোগই শোনা গেল দেশ জুড়ে। বিভ্রাট-গোলমাল আর কারচুপির অভিযোগের জেরে দিনের শেষে খলনায়ক হয়ে গেল বৈদ্যুতিন ভোটযন্ত্র (ইভিএম)। 

মহারাষ্ট্র থেকে গোয়া, কেরল— দেশের নানা প্রান্তে বিরোধী নেতাদের অভিযোগ, বিস্তর কারচুপি করা হয়েছে ইভিএমে। বিরোধীদের অভিযোগ, কংগ্রেস বা অন্য বিরোধী দলের চিহ্নে বোতাম টিপলেই ভোট চলে যাচ্ছে বিজেপির দিকে! কমিশনের পক্ষ থেকে রাতে দাবি করা হয়েছে, যে সব বুথে ভিভিপ্যাট এবং ইভিএম-এর কন্ট্রোল ইউনিট সম্পর্কে অভিযোগ এসেছে, সেখানে তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কমিশনের পরিসংখ্যান— মোট ৪০৭৫টি ভিভিপ্যাট এবং ১২২৫টি ইভিএম বদলানো হয়েছে। জানানো হয়েছে, সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আজ ৬৬ শতাংশ ভোট পড়েছে। 

ইভিএম নিয়ে অভিযোগের পাশাপাশি কংগ্রেস তোপ দেগেছে সকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর গাঁধীনগরে রোড শো নিয়েও। এ নিয়ে গুজরাতের নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জমা দিয়েছে তারা। কংগ্রেসের অভিযোগ, ভোট চলাকালীন সেই রাজ্যের রাস্তায় প্রচার করে নির্বাচনী বিধিভঙ্গ করেছেন মোদী। যদিও গুজরাতের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দাবি, মোদীর রোড শো-তে কোনও বিধিভঙ্গ হয়নি।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

আজ দিনভর ইভিএমে কারচুপি নিয়ে সরব থেকেছেন অখিলেশ যাদব-শরদ পওয়ার, অরবিন্দ কেজরীবাল, চন্দ্রবাবু নায়ডুর মতো বিরোধী নেতারা। উত্তরপ্রদেশের দশটি লোকসভা কেন্দ্রে আজ ভোট ছিল। দিনের শেষে অখিলেশ যাদবও ইভিএমে কারচুপির দিকে আঙুল তুলে বলেন, ‘‘সাড়ে তিনশোর বেশি ইভিএম বদলানো হয়েছে। যেখানে গোটা দেশের ভোটে ৫০ হাজার কোটি টাকা খরচ হয়, সেখানে এই ধরনের অবহেলা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’’ সৈফইতে নিজের ভোট দেওয়ার পর অখিলেশ বলেন, ‘‘রামপুর এবং বদায়ুঁ থেকেও মেশিন সম্পর্কে অভিযোগ এসেছে। নির্বাচন কমিশন বিষয়টিকে নজরে আনুক।’’ লখনউয়ে উত্তরপ্রদেশের মুখ্য নির্বাচন আধিকারিকের কাছে ইভিএম নিয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন এসপি নেতা রাজেন্দ্র চৌধরি।

আম আদমি পার্টির নেতা তথা দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীবালও ইভিএম নিয়ে একের পর এক টুইট করে অভিযোগ করেন। তিনি জানান, আজ গোয়ায় বেশ কিছু বুথে ইভিএমে গণ্ডগোল দেখা গিয়েছে। তাঁর কথায়, ‘‘চেরথালার কাছে কিঝাক্কে নালপাথু কেন্দ্রের বুথে মেশিন বদলানো হয়েছে। দেখা গিয়েছে, সেখানে সমস্ত ভোটই বিজেপির দিকে যাচ্ছে।’’ আপ-এর গোয়ার নেতা অলভিস গোমস টুইটে বলেন, ‘‘এটা কি নির্বাচন হচ্ছে নাকি প্রহসন?  নাকি দিনে ডাকাতি!’’ কেজরীবাল কেরলের এক ব্যক্তির টুইট শেয়ার করেছেন, যেখানে বলা হয়েছে, ‘হাত চিহ্নে বোতাম টিপলে কমল জ্বলে উঠছে!’

ইভিএম-কাণ্ডের পাশাপাশি আজ সম্পূর্ণ অন্য কারণে শিরোনামে উঠে এসেছে কেরল। সেখানে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে বা ভোট দিতে যাওয়ার পথে এবং গরমে অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের! একটি রাজ্যের ভোটে এত জনের মৃত্যুতে অস্বস্তিতে কমিশনও। 

কেরলের ইভিএমও কমিশনের মাথাব্যথা হয়ে উঠেছে দিনভর। ইভিএমে বিস্তর বিভ্রাটের পরেও কেরলে ভোট পড়েছে ৭৬.৯০%। রাহুল গাঁধীর জন্য শিরোনামে উঠে আসা ওয়েনাডে ভোট পড়েছে ৮০ শতাংশের বেশি। এই হিসেব রাত ৮টা পর্যন্ত। রাতের দিকে ভোটের শতাংশের হার বাড়বে বলেই নির্বাচন কমিশন সূত্রের ইঙ্গিত।

তিরুঅনন্তপুরম, কোল্লম, পাতানামতিট্টা, আলপ্পুঝার মতো লোকসভা কেন্দ্রের কিছু বুথে মঙ্গলবার সকাল থেকেই ভোটযন্ত্রে গোলযোগের অভিযোগ আসতে শুরু করে। কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ এবং সিপিএমের নেতৃত্বাধীন এলডিএফের কর্মী-সমর্থকেরা অভিযোগ করেন, ভোটযন্ত্রে যে কোনও বোতাম টিপলেই ভোট বিজেপির প্রতীকে চলে যাচ্ছে! বিভ্রাটের অভিযোগ পেয়ে কিছু বুথে ভোটযন্ত্র বদলে দেওয়া হয়, বাকি ক্ষেত্রে কমিশনের ইঞ্জিনিয়ারেরা যন্ত্র পরীক্ষা করে ফের ভোটগ্রহণ চালু করান। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা 

সিপিএমের পলিটব্যুরো সদস্য পিনারাই বিজয়ন এবং তিরুঅনন্তপুরমের কংগ্রেস প্রার্থী শশী তারুরের বক্তব্য, আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সতর্ক হয়ে ভোট নেওয়ার জন্য ভোটযন্ত্র পাঠানো উচিত ছিল কমিশনের।

ইভিএম নিয়ে বিরোধীদের একটি যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে শরদ পওয়ার বলেন, ‘‘ইভিএম মেশিনে প্রোগ্রামিং বদলে কারচুপি করা যায়।’’ একই সুরে অন্ধ্রের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নায়ডু অভিযোগ করেন, রুশ হ্যাকাররা ইভিএম হ্যাক করছে। 

বিহারে অবশ্য ভোট নিয়ে সে ভাবে কোনও অভিযোগ শোনা যায়নি। মাধেপুরা, সুপৌল, অররিয়া, খগড়িয়া এবং ঝঞ্ঝারপুর— এই ৫ কেন্দ্রে আজ ভোট হয়। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, সব মিলিয়ে গড়ে ৬০ শতাংশ ভোট পড়েছে। 

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত