ঝাড়ফুঁকের নামে এক ব্যক্তির গলায় গোখরো সাপ জড়িয়ে দিয়েছিলেন ওঝা। আর সেই সাপের ছোবলেই মৃত্যু হল ওই ব্যক্তির। ভয়ানক এই ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থানের জোধপুরে।
এক প্রতিবেশীর বাড়িতে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন জোধপুরের পুলানিও কি ধানি গ্রামের বাসিন্দা বছর বিয়াল্লিশের বাবুরাম। ওই অনুষ্ঠানে ছিলেন ইন্দ্ররাম সুথার নামে এক সাপুড়েও। তন্ত্রমন্ত্র ও ঝাড়ফুঁকের জন্য ওই এলাকায় তাঁর বেশ নামডাক। ঝাড়ফুঁকের নামে বাবুরামের গলায় মালা পরানোর মতো করে একটি গোখরো সাপকে ছেড়ে দেন ইন্দ্ররাম। সেই সাপটাই বাবুরামের কপালে ছোবল মারে। ‘কিছু হবে না, ভয় পাওয়ার কিছু নেই’— এই বলে ইন্দ্ররাম বাবুরামকে আশ্বস্ত করেন বলে জানান এক গ্রামবাসী। 

আরও পড়ুন: পাত্রী না পেয়ে রোবটকে বিয়ে

এর পর বাবুরামকে পাশের একটি মন্দিরে নিয়ে গিয়ে ঝাড়ফুঁক করা শুরু করেন ওই সাপুড়ে। টানা দু’ঘণ্টা ধরে বাবুরামের উপর তাঁর কেরামতি দেখাতে থাকেন। কিন্তু ক্রমেই বাবুরামের অবস্থার অবনতি হতে থাকে। বিপদ বুঝে বাবুরামকে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যান গ্রামবাসীরা। সেখানে চিকিত্সকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। বাবুরামের মৃত্যুর খবর পেয়ে গ্রাম থেকে চম্পট দেন ইন্দ্ররাম।

ইন্দ্ররামের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন বাবুরামের ভাই উমেদরাম। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে ইন্দ্ররামকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ইন্দ্ররাম অবশ্য দাবি করেন, বাবুরামের গলায় জড়িয়ে দিলেও সাপটা যে বিষাক্ত ছিল তা নাকি তিনি জানতেন না।