অপছন্দের পাত্র, তাই মেয়ে-জামাইকে মেনে নেননি বাবা, এমন ঘটনা তো আখছার ঘটে। ঝুড়ি ঝুড়ি সিনেমায় দেখানো হয়েছে এমন গল্প। তাই বলে সেই নিয়মেই পোষ্যকে বাড়ি থেকে বার করে দেওয়া! অবাক করার মতো হলেও, এমনই ঘটেছে তিরুঅনন্তপুরমের চক্কাই এলাকায়।

সম্প্রতি মালিকের অনিচ্ছা সত্ত্বেও পাড়ারই এক ছোকরা কুকুরের সঙ্গে ‘অবৈধ’ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল সুন্দরী পোমেরানিয়ান কুকুরটি। যা মেনে নেননি তাঁর মালিক। ফলত যা হওয়ার তাই হল। রেগেমেগে পোষ্যকে বাড়ি থেকেই বের করে দিলেন বাড়ির কর্তা। 

সম্প্রতি চক্কাইয়ের ওয়ার্ল্ড মার্কেট রোডের উপরে মেলে বছর তিনেকের ওই কুকুরটি। পিপলস ফর অ্যানিমাল (পিএফএ)-র এক স্বেচ্ছাসেবী সাদা লোমশ কুকুরটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যান নিজেদের ডেরায়। শামিম নামে ওই উদ্ধারকারী জানিয়েছেন, ওই কুকুরটির গলা থেকে  মিলেছে মালিকের লেখা একটি নোট। তাতে লেখা—‘‘ও খুবই ভাল কুকুর, ভাল স্বভাব, প্রচুর খাবার লাগে এমনটাও নয়। কোনও অসুখ নেই । শুধু সপ্তাহে পাঁচ দিন অন্তর স্নান করাতে হয়। গত তিন বছরে কাউকে কামড়ানোর রেকর্ড নেই। মোটের উপরে দুধ, বিস্কুট আর ডিম খায়।’’ তার সঙ্গে লেখা রয়েছে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার কারণও। জানানো হয়েছে, প্রতিবেশীর কুকুরের সঙ্গে ‘অবৈধ’ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার কারণেই এই সিদ্ধান্ত। 

এ হেন কাণ্ডে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পশুপ্রেমীদের একাংশ। কারও মতে, প্রজনন ঋতুতে কুকুরদের এমন ব্যবহার অত্যন্ত স্বাভাবিক। যদি তাঁর মালিক কুকুরটির প্রজননই আটকাতে চাইতেন, তা হলে কুকুরদের বন্ধ্যত্বকরণের চিকিৎসা করাতে পারতেন। আর যদি কুকুরের কৌমার্য্য রক্ষাই মূল উদ্দেশ্য হত, ঘরে আটকে রাখা উচিত ছিল কুকুরটিকে। 

শামিম জানিয়েছেন, সাধারণত অসুস্থ বা আহত কুকুরদেরই রাস্তায় ফেলে যেতে দেখেছেন তিনি। তবে এমন অদ্ভুত কারণে কুকুরকে বাড়ি ‌থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার ঘটনা বিরল। শামিম আরও জানান, বেশ মিষ্টি কুকুরটি। খুব শিগগিরই যে কেউ না কেউ কুকুরটিকে দত্তক নিয়ে নেবেন, সে বিষয়েও তিনি নিশ্চিত। 

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও।সাবস্ক্রাইব করুনআমাদেরYouTube Channel - এ।