শনিবার ত্রিপুরা, মেঘালয় ও নাগাল্যান্ডে বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশ। তার ৭২ ঘণ্টা আগে দলের অন্যতম প্রধান নেতা পি চিদম্বরমের পুত্র কার্তিকে দুর্নীতির মামলায় গ্রেফতার করেছে সিবিআই। এমন একটি সময়ে ফের ছুটি কাটাতে দেশের বাইরে চললেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী।

প্রতি বছর বিদেশে গিয়ে রাহুলের ছুটি কাটানো নিয়ে বহুদিন ধরেই কটাক্ষ করে আসছে বিজেপি। অনেকে ভেবেছিলেন দলের সর্বোচ্চ পদে আসীন হওয়ার পরে ছুটিতে যাওয়াটা হয়তো বন্ধ করবেন রাহুল।

এর আগে গত বছর ১৯ জুন নিজের ৪৭তম জন্মদিনটি বৃদ্ধা দিদিমার সঙ্গে কাটাতে তিনি ইতালিতে গিয়েছিলেন। এ বারও মার্চের পয়লা দিনে টুইট করে রাহুল জানিয়েছেন— তিনি ফের ইতালি চললেন। তাঁর দিদিমার বয়স ৯৩। মাটির মানুষ। হোলির ছুটিতে গিয়ে চমকে দিতে চান তাঁকে। দিদিমাকে বুকে জড়িয়ে ধরার জন্য তর সইছে না তাঁর।

রাহুলের এই টুইট ভাইরাল হয়েছে। নেট দুনিয়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে নানা মন্তব্যের লেজুড় নিয়ে। এমন একটি সময়ে ছুটি কাটানোর পরিকল্পনা নিয়ে অনেকেই হতবাক। হাজার হাজার কোটি টাকার ব্যাঙ্ক জালিয়াতি মামলার আসামি নীরব মোদী-মেহুল চোক্সীদের নিয়ে ‘চৌকিদার’ প্রধানমন্ত্রী মুখে কুলুপ এঁটেছেন। সেখানে ১০ লক্ষ টাকা ঘুষ নেওয়ার

অভিযোগে কার্তি চিদম্বরমকে গ্রেফতার করাটা সরকারের মরিয়া মনোভাবের প্রমাণ বলেই দাবি করছেন কংগ্রেসের নেতারা।

এই পরিস্থিতিতে দলের সর্বোচ্চ নেতা কী ভাবে বিদেশে দিদিমার কাছে ছুটি কাটাতে চললেন, তা নিয়েই কটু কাটব্য চলছে। তাতে যোগ দিয়ে বিজেপির সাংসদ মীনাক্ষি লেখি আবার পাল্টা টুইট করে বলেছেন— ‘দারুন ব্যাপার! কার্তির গ্রেফতার ওঁকে নানির কথা মনে পড়িয়ে দিয়েছে।’ সবিস্তার কিছু বলেননি লেখি। তবে এই মন্তব্যে তিনি আদতে

বফর্স ঘুষ কাণ্ডের কথাই মনে করিয়ে দিতে চেয়েছেন। নতুন করে বফর্স মামলা শুরু করেছে কেন্দ্র।

সেই মামলায় অভিযোগের তির সনিয়া গাঁধীর বাপের বাড়ির লোকেদের দিকেও।