নরেশ অগ্রবাল-সহ এক ঝাঁক পোড় খাওয়া রাজনৈতিক নেতাকে সরিয়ে শেষ পর্যন্ত সমাজবাদী পার্টির পক্ষ থেকে রাজ্যসভায় মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে জয়া বচ্চনকেই। আজ সপা সূত্রে এ কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

চলতি মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে জয়া ফের মনোনয়ন পাবেন কিনা তা নিয়ে গত এক মাস ধরেই চলছিল জল্পনা। সূত্রের খবর, জয়াকে তৃণমূল থেকে রাজ্যসভায় নির্বাচিত করতে উৎসাহী ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর সঙ্গে বচ্চন পরিবারের তথা জয়া বচ্চনের ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুবই ভাল। অমিতাভ-জায়া সপার হয়ে রাজ্যসভার সদস্য থাকলেও নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন তৃণমূল নেত্রীর সঙ্গে। মমতা সংসদে গেলে জয়া একাধিক বার তৃণমূলের অফিসে এসে তাঁর সঙ্গে দেখা করে গিয়েছেন। তৃণমূলের রাজ্যসভার কিছু নেতার সঙ্গেও জয়ার সখ্য রয়েছে।

সপা-য় এই সাংসদ পদের দৌড়ে এগিয়ে ছিলেন নরেশ অগ্রবাল। রামগোপাল যাদবের ঘনিষ্ঠ নরেশকে প্রার্থী করার ব্যাপারে শেষ পর্যন্ত আপত্তি জানান অখিলেশ। সূত্রের খবর, নরেশ বিজেপি নেতৃত্বের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলেন, এমন অভিযোগ এসেছে সপা নেতৃত্বের কাছে। 

রাজনৈতিক সূত্র জানাচ্ছে, কিছু দিন আগে বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয় মমতা এবং অখিলেশের মধ্যে। অখিলেশ মমতাকে জানান, জয়া বচ্চনকে তাঁরাই নিয়ে আসছেন। ফলে রাজ্যসভা থেকে তাঁকে সরে যেতে হচ্ছে না। মমতা এই বিষয়ে নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন। সমাজবাদী পার্টির সদস্য হিসেবেই যে জয়াকে রাখতে চান অখিলেশ, সে কথাও মমতাকে জানান উত্তরপ্রদেশের এই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।

তৃণমূল সূত্রে খবর, এই সিদ্ধান্তে খুশি মমতাও। বিজেপি-বিরোধী আঞ্চলিক দলগুলির কক্ষ সমন্বয়ের প্রশ্নে সপা এবং তৃণমূল রাজ্যসভায় ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রেখে চলছে। জয়া ফের এলে তৃণমূলেরই পরোক্ষ ভাবে সুবিধে হবে বলে মনে করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল।