সংগঠনকে চাঙ্গা করা, দলে শৃঙ্খলা আনা, কংগ্রেস শাসিত রাজ্যে তাক লাগানো কাজ করা— এ সব কিছু নিয়ে দলের নেতাদের এ বার প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছেন সনিয়া গাঁধী।

কংগ্রেসের সূত্রের খবর, গোটা দেশ থেকে নেতারা আগামী কাল দিল্লিতে আসছেন প্রশিক্ষণ নিতে। অন্তর্বর্তী সভাপতির দায়িত্ব নিয়েই সনিয়া গাঁধী নির্দেশ দিয়েছেন, যে সব রাজ্যে কংগ্রেসের সরকার রয়েছে, সেখানে লোকসভা ভোটের আগে দলের ইস্তাহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রূপায়ণ করতে হবে। যেমন কর্মহীন গরিবদের বছরে ৭২ হাজার টাকা দেওয়া, পৃথক কৃষি বাজেট তৈরি, নিখরচায় শিক্ষা, উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা, সরকারি শূন্য পদে নিয়োগ ইত্যাদি।

তবে সনিয়ার বড় সমস্যা রাজ্যে রাজ্যে নেতাদের কোন্দল মেটানো। মধ্যপ্রদেশে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া দলের সভাপতি হতে চান। না হলে বিজেপিমুখী হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। অথচ কমল নাথ-দিগ্বিজয় সিংহের জুটি তাঁকে চান না। তা নিয়ে লড়াই প্রকাশ্যে। সিন্ধিয়া সমর্থিত কমল নাথের বনমন্ত্রী উমঙ্গ সিংঘার সনিয়া গাঁধীকে চিঠি লিখে নালিশ জানিয়েছেন, মধ্যপ্রদেশে পিছন থেকে বকলমে সরকার চালাচ্ছেন দিগ্বিজয়। অফিসারদের বদলির হিসেব নিচ্ছেন। আবার হরিয়ানার নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেও এখনও পর্যন্ত সভাপতি চূড়ান্ত করতে পারেননি সনিয়া।