নিউজ পোর্টাল ‘তহলকা’-র প্রাক্তন সম্পাদক তরুণ তেজপালের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগকে ‘গুরুতর বিষয়’ আখ্যা দিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। 

গোয়ার একটি আদালতে তাঁর বিরুদ্ধে এক সহকর্মীর আনা ধর্ষণের অভিযোগ খারিজের আর্জি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তেজপাল। কিন্তু আজ শীর্ষ আদালত জানিয়ে দিয়েছে, ওই মামলা খারিজ হবে না। সুপ্রিম কোর্টের মতে, সাংবাদিক তেজপালের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ গুরুতর এবং এটি  নির্যাতিতার গোপনীয়তার উপর আঘাত। পাশাপাশি, এই মামলার বিচারে দেরি হয়েছে মনে করে আগামী ছয় মাসের মধ্যে তার নিষ্পত্তি করতে নিম্ন আদালতকে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

২০১৩ সালে ‘তহলকা’-র এক মহিলা কর্মী অভিযোগ আনেন, গোয়ায় সংস্থার একটি অনুষ্ঠান চলাকালীন প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক তরুণ তেজপাল তাঁর শ্লীলতাহানি করেছেন। একটি পাঁচতারা হোটেলের লিফটে ওই ঘটনা ঘটেছে। ওই মহিলা কর্মী বিষয়টি নিয়ে ‘তহলকা’ কর্তৃপক্ষের কাছে ইমেল করেন। তবে সেই ই-মেল সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হয়ে যাওয়ায় হইচই শুরু হয়। বিতর্কের জেরে ‘তহলকা’-র সম্পাদকের পদ থেকে ইস্তফা দেন তেজপাল। সেই বছরেই নভেম্বরে গ্রেফতার করা হয় তাঁকে। ২০১৪-র মে মাস থেকে তিনি জামিনে মুক্ত। 

২৬৮৪ পৃষ্ঠার চার্জশিটে গোয়ার পুলিশ আদালতে দাবি করেছে, তেজপাল দু’বার ওই মহিলার শ্লীলতাহানি করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ রয়েছে। তেজপাল অবশ্য সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে দাবি করেছেন, গোয়ার বিজেপি সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই এই সব অভিযোগ এনেছে।

মামলা খারিজের আর্জি নিয়ে বম্বে হাইকোর্টেও গিয়েছিলেন ‘তহলকা’-র প্রাক্তন সম্পাদক। কিন্তু হাইকোর্ট তাঁকে রেহাই দেয়নি। আজ সুপ্রিম কোর্টেও ধাক্কা খেলেন তেজপাল।