পাকিস্তানে সঠিক আচরণ না করায় নভজ্যোৎ সিংহ সিধুকে ভৎর্সনা করা হয়েছে বলে দাবি করেছিলেন বিদেশ প্রতিমন্ত্রী হরসিমরত কৌর বাদল। আজ সিধু জানান, কর্তারপুর করিডর নিয়ে পাকিস্তানকে চিঠি লেখা হবে বলে তাঁকে আশ্বস্ত করেছেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। তবে কৌরের দাবি নিয়ে মুখ খোলেননি তিনি। এর পরেই ফের তাঁকে নিশানা করেছে বিজেপি ও সরকার।

ইমরান খানের শপথে পাক সেনাপ্রধান কমর বাজওয়াকে আলিঙ্গন করে বিতর্কে জড়ান তিনি। দেশে ফিরে সিধুর দাবি, পাকিস্তানের কর্তারপুর সাহিবে ভারতীয় শিখ তীর্থযাত্রীদের যাওয়ার জন্য করিডর তৈরির চেষ্টা করছে পাকিস্তান। সে কথাই তাঁকে জানান পাক সেনাপ্রধান। তার পরে তাঁকে আলিঙ্গন ছাড়া পথ ছিল না। গতকাল বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে দেখা করে কর্তারপুর সাহিবে যাওয়ার করিডর নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনার আর্জি জানান সিধু। ওই বৈঠকের পরে বিদেশ প্রতিমন্ত্রী হরসিমরত কৌর বাদলের‌‌ দাবি, পাকিস্তানে সঠিক আচরণ না করায় সিধুকে ভৎর্সনা করা হয়।

আজ সিধু দাবি করেন, কর্তারপুর শিখদের কাছে মক্কার মতোই পবিত্র। সেখানে যাওয়ার জন্য করিডর নিয়ে পাক প্রস্তাবের কথা সুষমাকে জানিয়েছেন তিনি। সিধুর কথায়, ‘‘এ নিয়ে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পাঠানো ভারতের দায়িত্ব।’’ সিধুর দাবি, এই বিষয়ে খসড়া তৈরি করা হচ্ছে বলে জানান সুষমা। এ নিয়ে বিদেশমন্ত্রী পাক সরকারকে চিঠি লেখার আশ্বাস দিয়েছেন বলেও দাবি সিধুর। বিদেশ প্রতিমন্ত্রী ভি কে সিংহের অবশ্য দাবি, এ নিয়ে পাকিস্তানের কাছ থেকে প্রস্তাব আসা প্রয়োজন। ভারত এখনও তেমন কোনও প্রস্তাব পায়নি।

সিধুর মন্তব্যের পরেই ফের আক্রমণ শানায় বিজেপি সরকার। প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের মতে, পাক সেনাপ্রধানকে আলিঙ্গন করে সিধু ভুল বার্তা দিয়েছেন।