• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বিনোদন

হাতেনাতে ধরতে শুটিং স্পটে পৌঁছে যান টুইঙ্কল, প্রিয়ঙ্কার সঙ্গে সম্পর্কের কথা স্বীকার করেন অক্ষয়

শেয়ার করুন
১২ 1
অক্ষয় কুমার এবং টুইঙ্কল খন্না। বলিউডের সুখি দম্পতি হিসেবে পরিচিত। কিন্তু তাঁদের দাম্পত্যও টলমল করেছে। তার কারণ ছিলেন প্রিয়ঙ্কা চোপড়া। টুইঙ্কলকে এক বার অক্ষয় নাকি বলেছিলেন, তিনি প্রিয়ঙ্কার প্রতি দুর্বল।
১২ 2
কেরিয়ারের শুরুতে প্রিয়ঙ্কা অভিনয় করেছিলেন ‘অন্দাজ’ ছবিতে। সুপারহিট এই ছবিতে অক্ষয়-প্রিয়ঙ্কা জুটি দর্শকদের খুব পছন্দ হয়েছিল। পর পর বেশ কয়েকটি ছবিতে দু’জনে কাজ করেন।
১২ 3
২০০১-এ টুইঙ্কলকে বিয়ের পরেও বলিউডে অক্ষয়ের ‘প্লে বয়’ ভাবমূর্তি বজায় ছিল। টুইঙ্কল অবশ্য নিজের কেরিয়ারকে বিদায় জানিয়েছিলেন। বিয়ের পরে অন্য নায়িকার সঙ্গে অক্ষয়ের নাম জড়িয়ে গেলে টুইঙ্কল ক্ষুব্ধ হতেন স্বাভাবিক ভাবেই।
১২ 4
বিয়ের পরেও অক্ষয়ের প্রথম লক্ষ্য ছিল কেরিয়ার। কিন্তু প্রিয়ঙ্কার সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্বের আকর্ষণ উপেক্ষা করতে পারেননি তিনি। প্রথম দিকে তাঁদের সম্পর্কের গুঞ্জনকে গুরুত্ব দিতেন না টুইঙ্কল। উড়িয়ে দিতেন গুজব বলে।
১২ 5
কিন্তু ক্রমে টুইঙ্কলের সন্দেহ দৃঢ় হতে থাকে। ‘ওয়ক্ত’ ছবির শুটিংয়ে টুইঙ্কল নিজেই গিয়ে হাজির হন। সে সময় ইউনিটের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে তিনি আন্দাজ করতে পারেন প্রিয়ঙ্কার সঙ্গে তাঁর স্বামীর সম্পর্ক ‘নিছক বন্ধুত্বের’ সীমানা পেরিয়ে গিয়েছে।
১২ 6
গুঞ্জন, এর পর স্বামীর সঙ্গে কথা না বলে প্রিয়ঙ্কাকেই ফোন করেন টুইঙ্কল। এবং ফোনে দুই নায়িকার মধ্যে উত্তপ্ত কথা কাটাকাটি হয়। এখানেই শেষ হয়নি, জল গড়িয়ে যায় আরও বহু দূর। আরও এক বার শুটিংস্পটে হাজির হন টুইঙ্কল। উদ্দেশ্য ছিল, প্রিয়ঙ্কার সঙ্গে মুখোমুখি কথা বলা।
১২ 7
কিন্তু সে দিন প্রিয়ঙ্কা ছিলেন না শুটিংয়ে। পরিবর্তে, স্বামীর মুখোমুখি হন টুইঙ্কল। গোয়ার ওই হোটেলের কর্মীদের দাবি, প্রকাশ্যেই চরমে ওঠে দু’জনের বাদানুবাদ। তাঁদের কথা কাটাকাটিতে বার বার উঠে এসেছিল ‘প্রিয়ঙ্কা’র নাম।
১২ 8
প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, ঝগড়ার মধ্যে মেজাজ হারিয়ে স্থান-কাল-পাত্র ভুলে অক্ষয় নাকি বলে ওঠেন, হ্যাঁ, প্রিয়ঙ্কার সঙ্গে তাঁর প্রেম আছে। এর মাসুল দিতে হয়েছিল অক্ষয়কে। তাঁকে এবং দু’বছরের ছেলে আরভকে গোয়ায় রেখে টুইঙ্কল মুম্বই ফিরে গিয়েছিলেন।
১২ 9
যদিও পরে টুইঙ্কল এই প্রসঙ্গে বলেছিলেন, তিনি দুবাই গিয়েছিলেন। ছেলে আরভ ছিল গোয়ায়, তার বাবার সঙ্গে। দাম্পত্য বিবাদের কথা স্বীকার করেননি রাজেশ-কন্যা। এই ঘটনায় কথা অস্বীকার করেছিলেন অক্ষয়ও।
১০১২ 10
সে সময় বলিউডে পর পর বিচ্ছেদ হচ্ছিল তারকা-দম্পতির। রীনার সঙ্গে আমিরের বিয়ে ভেঙে গিয়েছিল। আলাদা হয়ে গিয়েছিলেন সেফ এবং অমৃতা। মুখ থুবড়ে পড়েছিল সলমন ঐশ্বর্যার প্রেমও। এ রকম একটা সময়ে ভেসে ওঠে অক্ষয়-টুইঙ্কলের বিচ্ছেদের আশঙ্কাও।
১১১২ 11
এর পর অক্ষয় জানিয়ে দেন, তিনি আর প্রিয়ঙ্কার সঙ্গে অভিনয় করবেন না । তিনি চেয়েছিলেন তাঁর দাম্পত্যকে বাঁচাতে। তাঁর এই কথায় একই সঙ্গে আহত ও বিস্মিত হয়েছিলেন প্রিয়ঙ্কা। তিনিও বলে দেন, অক্ষয়ের সঙ্গে এর পর আর কাজ করবেন না।
১২১২ 12
‘ওয়ক্ত’ ছবির পরে এই জুটিকে আর পর্দায় দেখা যায়নি। ‘নমস্তে লন্ডন’ ছবিতে অভিনয় করার কথা ছিল প্রিয়ঙ্কার। কিন্তু শেষ অবধি তাঁর জায়গায় অভিনয় করেন ক্যাটরিনা কইফ। তবে অক্ষয়ের সঙ্গে সম্পর্কের কথা কোনওদিন স্বীকার করেননি প্রিয়ঙ্কাও।

Advertisement

Advertisement

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
বাছাই খবর
আরও পড়ুন