বিশ্বকাপ দলে সুযোগ পাওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগেই মর্মান্তিক দুঃসংবাদটা পেয়ে যান তিনি। রবিবার রাতে ইংল্যান্ডের সঙ্গে লিডসে ওয়ান ডে খেলে উঠে পাকিস্তানের ব্যাটসম্যান আসিফ আলি জানতে পারেন, তাঁর ১৯ মাসের মেয়ে আর নেই। বাবা যখন ইংল্যান্ডের বোলারদের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছিলেন, তখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালে ক্যানসারের সঙ্গে লড়াইয়ে হেরে চিরনিদ্রায় তলিয়ে যায় ছোট্ট নুর ফতিমা। 

আর তার কয়েক ঘণ্টা পরেই পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, আসিফকে বিশ্বকাপের জন্য চূড়ান্ত দলে রাখা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে পাকিস্তান যে দল ঘোষণা করেছিল, তাতে নাম ছিল না আসিফের। কিন্তু ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ভাল খেলার ফলে আসিফকে দলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন নির্বাচকেরা। আরও দু’জনকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে ১৫ জনের দলে। তাঁরা হলেন মহম্মদ আমির এবং ওয়াহাব রিয়াজ়। 

আপাতত ইংল্যান্ড থেকে পাকিস্তানে ফিরে যাচ্ছেন আসিফ। সেখান থেকে প্রয়োজন হলে তিনি যুক্তরাষ্ট্র উড়ে যাবেন। তবে পাকিস্তান নির্বাচক কমিটির প্রধান ইনজ়ামাম উল হক জানিয়েছেন, বিশ্বকাপ শুরুর আগেই প্রস্তুতি ম্যাচ থেকে দলে পাওয়া যাবে আসিফকে।

এই মর্মান্তিক ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে পাকিস্তান ক্রিকেট মহলে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান স্বয়ং টুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘‘আসিফ আলি এবং ওর পরিবারের প্রতি আমার পূর্ণ সমবেদনা রইল। ওদের জন্য প্রার্থনা করছি।’’  আর এক কিংবদন্তি ভিভ রিচার্ডসের টুইট, ‘‘হৃদয়বিদারক। ঈশ্বর তোমাদের শক্তি দিন।’’ শোকবার্তা পাঠিয়েছেন শোয়েব আখতার থেকে মহম্মদ আমিরও। আখতার লিখেছেন, ‘‘আসিফ আলির মেয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে আমি মর্মাহত। ওদের ওপর দিয়ে কী যাচ্ছে, তা ভাবতে পারছি না।’’ আসিফের সঙ্গেই যিনি এ দিন পাকিস্তানের বিশ্বকাপগামী দলে সুযোগ পেলেন, সেই আমির লিখেছেন, ‘‘খবরটা পেয়ে আমি স্তম্ভিত, শোকস্তব্ধ হয়ে গিয়েছি।’’

এ বছরে পাকিস্তান প্রিমিয়ার লিগ চলার সময়ই মেয়ের ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার খবর জানতে পারেন আসিফ। ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের কোচ ডিন জোন্সের কাছে মেয়ের অবস্থার কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলেছিলেন। গত মাসে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজে খেলতে আসার আগে আসিফ টুইট করেছিলেন, মেয়েকে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠাচ্ছেন চিকিৎসার জন্য। আসিফের আবেদন ছিল, ‘‘আমার মেয়ের জন্য প্রার্থনা করুন।’’ 

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে প্রতিটাতেই খেলেছেন আসিফ। পাক নির্বাচক প্রধান ইনজ়ামাম বলেছেন, ‘‘আবিদ আলির জায়গায় আসিফকে নেওয়ার ব্যাপারে আমরা অনেক ভাবনা চিন্তা করেছি। কিন্তু ছয়-সাত নম্বরে আমাদের এক জন পাওয়ার হিটার দরকার ছিল। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে আসিফ খুব ভাল খেলেছে। আশা করছি, প্রস্তুতি ম্যাচ থেকেই আসিফকে পেয়ে যাব। যদি না পাই, তা হলে ওর ফেরা পর্যন্ত অপেক্ষা করা হবে।’’