• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

জাদু জানত আমার বন্ধু, শ্রদ্ধা পেলের

Footballer
অমলিন: মাঠের বাইরেও ব্যাঙ্কস এবং পেলের বন্ধুত্ব ছিল অটুট। ফাইল চিত্র

ঊনপঞ্চাশ বছর আগে মেক্সিকো বিশ্বকাপে তাঁর অবিশ্বাস্য গোলরক্ষার ঘটনা এখনও ভুলতে পারেননি পেলে।

মঙ্গলবার ইংল্যান্ডের কিংবদন্তি গোলকিপার গর্ডন ব্যাঙ্কসের মৃত্যুর পরে সেই প্রসঙ্গ ফিরে এল ‘বন্ধু’ পেলের মুখে। ৭৬ বছরের ফুটবল সম্রাট জানিয়েছেন, ১৯৭০ সালের বিশ্বকাপে যে ভাবে ব্যাঙ্কস গোল বাঁচিয়েছিলেন, তা দেখে তিনিও আনন্দিত হয়েছিলেন। পেলে বলেছেন, ‘‘ওই ঘটনার পরে ব্যাঙ্কসের সঙ্গে আমার বন্ধুত্বের সূত্রপাত। যা আমার কাছে এখনও অমূল্য সম্পদ হিসেবে রয়ে গিয়েছে।’’ তিনি আরও বলেছেন, ‘‘যখনই দেখা হত, মনে হত আমরা কখনও বিচ্ছিন্ন হইনি।’’

সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাঙ্কসের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পেলে বলেছেন, ‘‘আজ আমার হৃদয় ভারাক্রান্ত। বন্ধু তুমি শান্তিতে থাকো। আর একটা কথা আবারও বলব। আমার বন্ধু ছিল সেই গোলকিপার, যার হাতে জাদু ছিল। তার উপরেও আরও একটা ব্যাপার ছিল। তুমি ছিলে সুন্দর এক মানুষ।’’

মেক্সিকো বিশ্বকাপের সেই গোল বাঁচানোর প্রসঙ্গ টেনে পেলে বলেছেন, ‘‘অধিকাংশ মানুষের স্মৃতিতে ব্যাঙ্কস অমর হয়ে রয়েছে ১৯৭০ সালের সেই অবিশ্বাস্য গোল বাঁচানোর জন্য। সত্যি বলতে, তার পরে হাজার ম্যাচ দেখার পরেও আমার চোখে সেটাই ছিল অন্যতম সেরা সেভ।’’ সেখানেই না থেমে পেলে আরও বলেছেন, ‘‘ফুটবলার হিসেবে কত অসাধারণ খেলতে, সেটা সম্ভবত তুমিও জানতে। আমি কিন্তু ওই ম্যাচে ঠিক জায়গাতেই হেড করেছিলাম। এবং গোল হয়ে গিয়েছে ধরে নিয়ে উৎসব করতে যাচ্ছিলাম।’’ কিন্তু সেই উৎসব রয়ে গিয়েছিল অপূর্ণ। পেলের কথায়, ‘‘ঠিক সেই সময়েই আমার চোখের সামনে এসে উপস্থিত হল ব্যাঙ্কস নামে এক নীল বিদ্যুৎ। ও যে কোথা থেকে চলে এল, সেটা আমি বুঝতেও পারিনি। বিশ্বাসই হচ্ছিল না, আমার হেডটা ও বাঁচিয়ে দিল। এত দ্রুত গতিতে কেউ চলে আসতে পারে, তা ভাবতেই পারিনি।’’

স্মৃতিমেদুর পেলে জানিয়েছেন, জীবনে হাজারের উপরে গোল করার পরেও লোকে বারবার তাঁর কাছে জানতে চেয়েছেন ব্যাঙ্কসের সেই অকল্পনীয় গোল বাঁচানোর কাহিনি। পেলে বলেছেন, ‘‘আমার সেই হেড বাঁচিয়েছিলে বলে তোমার জন্য আমিও আনন্দিত।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন