মাটিতে পড়ে ছটফট করছেন আই এম বিজয়ন। রক্তে ভিজে গিয়েছে দেহ। অথচ কেউ সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসছেন না। এক সময় নিথর হয়ে গেল শরীর। 

উদ্বিগ্ন হবেন না। ভারতীয় ফুটবলের সর্বকালের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার ও জাতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক সম্পূর্ণ সুস্থই আছেন। এই মুহূর্তে তিনি ব্যস্ত চেন্নাইয়ে তামিল ছবি ‘বিজিল’-এর শুটিংয়ে। তবে এ বারও অত্যাচারী খলনায়কের ভূমিকায়। শেষ দৃশ্য যাকে মেরে প্রতিশোধ নেবেন নায়ক। 

খেলোয়াড় জীবনে অসংখ্য ম্যাচে দলকে জিতিয়ে নায়ক হয়েছেন বিজয়ন। অথচ রুপোলি পর্দায় সব সময়ই তিনি খলনায়কের ভূমিকায়? কারণটা কী? চেন্নাই থেকে ফোনে হাসতে হাসতে বিজয়ন বললেন, ‘‘পরিচালকেরা হয়তো খলনায়কের ভূমিকাতেই আমাকে বেশি পছন্দ করেন। তাই নায়ক হওয়ার স্বপ্ন অধরাই থেকে গেল।’’ 

বিজয়নের সঙ্গে এই ছবিতে অভিনয় করছেন বলিউড তারকা জ্যাকি শ্রফ ও তামিল মহাতারকা বিজয়। সঙ্গীত পরিচালনার দায়িত্বে এ আর রহমান। দীপাবলিতে মুক্তি পাচ্ছে ছবি। উচ্ছ্বসিত বিজয়ন বলছিলেন, ‘‘প্রায় ২০০ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে ছবি তৈরিতে। এত বড় বাজেটের ছবিতে এই প্রথম অভিনয় করার ডাক পেলাম বলে উচ্ছ্বসিত। আশা করছি, এ বারও দর্শকদের হতাশ করব না। এটা আমার চতুর্থ তামিল ছবি।’’ 

শুটিংয়ে ব্যস্ততার মধ্যেও ফুটবলের সব খবর রয়েছে বিজয়নের কাছে। আন্তর্মহাদেশীয় কাপে ভারতীয় দলের ব্যর্থতায় মন খারাপ হলেও হতাশ নন। বললেন, ‘‘ইগর স্তিমাচ সবে দায়িত্ব নিয়েছেন। ওকে নিজের মতো করে দল গড়ে নেওয়ার সময় দিতে হবে। কোনও কোচ রাতারাতি সাফল্য পায় না। ইগরের উপরেও আস্থা রাখতে হবে।’’ বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে সুনীল ছেত্রীরা অপেক্ষাকৃত সহজ গ্রুপে পড়েছেন বলেও মানছেন তিনি। বিজয়নের কথায়, ‘‘কোনও ম্যাচই সহজ নয়। এই ধরনের প্রতিযোগিতা দীর্ঘ দিন ধরে চলে। ফলে ছন্দ ধরে রাখা খুব কঠিন হয়ে যায়।’’  বিজয়ন উচ্ছ্বসিত আন্তর্মহাদেশীয় কাপে সুনীল ছেত্রীর পারফরম্যান্সেও। বললেন, ‘‘জীবনের সেরা ফর্মে আছে। ভারতীয় ফুটবলের সর্বকালের সেরা স্ট্রাইকার হওয়ার যাবতীয় গুণ রয়েছে ওর মধ্যে।’’