নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে হারের পরে একটা বার্তা দলের লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দিয়েছেন অধিনায়ক বিরাট কোহালি। সেটা হল, যে কোনও পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য তৈরি থাকতে হবে। শুরুর দিককার ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থ হলে ব্যাট হাতে দলকে টানতে হবে।

শনিবার ওভালে নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে ট্রেন্ট বোল্টের সুইংয়ের সামনে ভেঙে পড়ে ভারতের টপ অর্ডার ব্যাটিং। যা নিয়ে ম্যাচের পরে কোহালি বলে যান, ‘‘আমাদের পরিকল্পনা মতো ব্যাপারটা হয়নি। ইংল্যান্ডে আবহাওয়া মেঘলা থাকলে এ রকম হতেই পারে। বিশ্বকাপের মতো প্রতিযোগিতায় মাঝে মাঝে প্রথম দিককার ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থ হতে পারে। তখন কিন্তু পরের দিককার ব্যাটসম্যানদের তৈরি থাকতে হবে দায়িত্ব নেওয়ার জন্য।’’ নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে যে ভাবে হার্দিক পাণ্ড্য, রবীন্দ্র জাডেজারা পরের দিকে দলকে টেনেছেন, তার প্রশংসাও করেছেন ভারত অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘‘প্রথম দিকে বেশ কয়েকটা উইকেট পড়ে যাওয়ার পরে হার্দিক, ধোনি, জাডেজারা যে ভাবে ব্যাট করল, সেটা আমাদের পক্ষে একটা ভাল দিক।’’

প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাটে-বলে সফল জাডেজা আবার আশা করছেন, বিশ্বকাপ শুরু হলে পিচের চরিত্র বদলে যাবে। শনিবার রাতে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘‘ইংল্যান্ডের পরিবেশ ঠিক যে রকম হয়, সে রকম ছিল। পিচ প্রথম দিকে একটু নরম ছিল। কিন্তু যত ম্যাচ গড়িয়েছে, ব্যাটিংয়ের পক্ষে ভাল হয়ে গিয়েছে। আশা করব, বিশ্বকাপ শুরু হলে পিচে এত ঘাস থাকবে না আর ব্যাটসম্যানেরাও সুবিধে পাবে।’’

রবিবারই লন্ডন থেকে কার্ডিফ চলে গেল ভারত। যেখানে মঙ্গলবার বাংলাদেশের সঙ্গে ওয়ার্ম আপ ম্যাচ খেলতে নামবে কোহালির দল। কিন্তু রবিবার সেখানে প্রচণ্ড বৃষ্টি হয়েছে। যে বৃষ্টিতে একটা বল না হয়েই ভেস্তে গিয়েছে বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তানের প্রস্তুতি ম্যাচ। এ রকম আবহাওয়া চলতে থাকলে মঙ্গলবারের ম্যাচেও কিন্তু জাডেজার কথা মতো ‘ইংলিশ কন্ডিশন’ পেতে পারে ভারত। 

নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে টস জিতে প্রথম ব্যাট নেওয়ার চ্যালেঞ্জটা নিয়েছিলেন কোহালি। কিন্তু ভারতীয় ইনিংস শেষ হয়ে যায় ১৭৯ রানে। জাডেজা বলছেন, ‘‘ওটা আমাদের প্রথম ম্যাচ ছিল। আর নিছকই একটা প্রস্তুতি ম্যাচ। এক জন ব্যাটসম্যানকে কখনও একটা ইনিংস দিয়ে বিচার করা যায় না। একটা খারাপ ম্যাচ দিয়ে বিচার করা যায় না। তাই একটা ম্যাচে ব্যাটিং ব্যর্থতা নিয়ে চিন্তার কোনও কারণ নেই।’’ 

ইংল্যান্ডের পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়াটা যে মোটেই সহজ নয়, সেটা মনে করিয়ে দিয়েছেন জাডেজা। এই অলরাউন্ডার বলেছেন, ‘‘ইংল্যান্ডে প্রথম দিকে মানিয়ে নেওয়াটা বেশ কঠিন কাজ। ভারতে নিষ্প্রাণ উইকেটে খেলতে হয়। তবে এখনও আমাদের কাছে মানিয়ে নেওয়ার জন্য আরও সময় আছে।’’ জাডেজা এই বলেও আশ্বস্ত করেন, ‘‘চিন্তার কোনও কারণ নেই। আমাদের ভাল ক্রিকেট খেলতে হবে। ব্যাটিং ইউনিটকে একটু দক্ষতায় পালিশ করে নিতে হবে। আমাদের দলে অভিজ্ঞতার কমতি নেই। তাই চিন্তারও কিছু নেই।’’

তবে কার্ডিফে বৃষ্টি যদি আবার থাবা বসায়, তা হলে কিন্তু ভারতের প্রস্তুতি পর্ব ধাক্কা খেতে পারে। কোচ শাস্ত্রী এ দিন তাঁর সহকারী এবং যুজবেন্দ্র চহালের সঙ্গে একটি ছবি টুইট করে লেখেন, ‘‘ছেলেদের সঙ্গে ঘরে যাচ্ছি— ওয়েলসে।’’ কার্ডিফের পরিবেশ সম্পর্কে অবশ্য ভালই ওয়াকিবহাল শাস্ত্রী। কারণ ক্রিকেট খেলার সময় ওয়েলসের কাউন্টি গ্ল্যামারগনে দীর্ঘদিন খেলেছেন শাস্ত্রী। যে কারণে ওয়েলসের রাজধানী কার্ডিফে যাওয়ার আগে ওই ছবি টুইট করেন ভারতের হে়ড কোচ। 

জাডেজা অবশ্য ব্যাটিং প্র্যাক্টিসটা সেরে নিয়েছেন ভাল মতোই। ২০ ওভারের মাথায় যখন ব্যাট করতে যাচ্ছিলেন, কী পরিকল্পনা ছিল? জাডেজার মন্তব্য, ‘‘আমি নিজেকে বলছিলাম, কিছুতেই ভুল শট খেললে হবে না। কোনও তাড়াহুড়ো নেই। আমার হাতে অনেক সময় আছে।’’ তিনি যোগ করেন, ‘‘আমি জানতাম, প্রথম দিকে যদি একটু দেখে খেলে দিতে পারি, তা হলে পরের দিকে ব্যাট করাটা সহজ হয়ে যাবে। সেটাই হয়েছে। কঠিন ওভারগুলো সামলে দেওয়ার পরে ব্যাট করাটা সহজ হয়ে যায়।’’

কিন্তু টস জিতে ব্যাট নেওয়া হল কেন? বিশেষ করে যখন বোঝা যাচ্ছিল, পিচ এবং পরিবেশ পেসারদের সাহায্য করবে? অধিনায়কের সুরে সুর মিলিয়ে জাডেজার ব্যাখ্যা, ‘‘আমরা কঠিন পরিবেশে ব্যাট করতে চেয়েছিলাম। যাতে বিশ্বকাপে এ রকম পরিস্থিতিতে খেলতে সমস্যা না হয়।’’ 

বিশ্বকাপে নিজের লক্ষ্যও স্থির করে ফেলেছেন জাডেজা। তিনি বলে দিয়েছেন, ‘‘বিশ্বকাপের কথা ভেবে নিজের ওপরে কোনও চাপ তৈরি করতে চাই না। যে ভাবে খেলে এসেছি, সে ভাবেই খেলে যেতে চাই।’’  নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলা ৫০ বলে ৫৪ রানের ইনিংস নিয়ে জাডেজা বলেছেন, ‘‘আমার হাতে প্রচুর সময় ছিল। তাই কোনও রকম তাড়াহুড়ো করিনি।’’ জাডেডা এও জানিয়েছেন, আইপিএলের সময় নিজের ব্যাটিং উন্নত করার দিকে নজর দিয়েছিলেন।