ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজের শেষ ম্যাচে হারল ভারত। যা হোয়াইটওয়াশ হওয়ার হাত থেকে বাঁচাল ইংল্যান্ডকে। দ্বিতীয় ওয়ান ডের শেষেই ২-০ এগিয়ে ছিল ভারত। তৃতীয় ম্যাচের শেষে সিরিজের ফল ২-১। সিরিজ জিতলেও ভারত অধিনায়ক মিতালি রাজকে সব চেয়ে বেশি ভাবাচ্ছে শেষ ম্যাচের হার। যার জন্য দু’টি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট হাতছাড়া করেছে ভারত। 

আইসিসি উইমেন্স চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হওয়ার পরে বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জন করার জন্য প্রত্যেক ম্যাচ জেতা জরুরি। এখান থেকে সর্বোচ্চ পয়েন্ট সংগ্রহকারী আটটি দল সরাসরি সুযোগ পাবে বিশ্বকাপে। সে ক্ষেত্রে তিন ম্যাচের সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করলে গুরুত্বপূর্ণ ছয় পয়েন্ট সংগ্রহ করতে পারত ভারত। কিন্তু শেষ ম্যাচে দুই উইকেটে হেরে চার পয়েন্ট নিয়েই সিরিজ শেষ করতে হল ঝুলন গোস্বামীদের।

বৃহস্পতিবার মুম্বইয়ে প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে আট উইকেট হারিয়ে ২০৫ রান করে ভারত। ৬৬ রান করেন ওপেনার স্মৃতি মন্ধানা। ৫৬ রান পুনম রাউতের। রান পাননি জেমাইমা রদ্রিগেজ। মিতালি ফিরে যান সাত রান করে। জবাবে সাত বল বাকি থাকতে আট উইকেট হারিয়ে ২০৮ রান তোলে ইংল্যান্ড। ৯ ওভার বল করে ৪১ রান দিয়ে ঝুলন তিন উইকেট নিলেও তাঁর প্রচেষ্টা বিফলে যায়। সিরিজ জিতেও সে ভাবে খুশি হতে পারছেন না মিতালি। ম্যাচ শেষে তিনি বললেন, ‘‘শেষ চার সিরিজে একটি করে ম্যাচ আমরা হেরেছি। সে ক্ষেত্রে দুই পয়েন্ট করে যোগ করা হলে দেখা যাবে আমরা মোট আট পয়েন্ট হারিয়েছি। আট পয়েন্ট পেলে খুব ভাল জায়গায় থাকতাম।’’

বর্তমানে আইসিসি উইমেন্স চ্যাম্পিয়নশিপের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। পয়েন্ট ১৬। শীর্ষে অস্ট্রেলিয়া। তাদের পয়েন্ট ২০। মিতালি বলছিলেন, ‘‘পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আমরা খেলছি না। আমাদের সামনে শুধু রইল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বাকি দলগুলোর সঙ্গে ম্যাচ খেলা হয়ে গিয়েছে।’’

আইসিসি-র বেশির ভাগ প্রতিযোগিতায় ডিআরএস প্রযুক্তি থাকে। কিন্তু ইংল্যান্ড সিরিজে সেই ব্যবস্থা ছিল না। মিতালি জানিয়েছেন, নিয়মিত ভাবে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করতে না পারলে ভবিষ্যতে সমস্যা হতে পারে। ‘‘আইসিসি-র যে কোনও ম্যাচে খেলতে গেলে ডিআরএস ব্যবহার করার অভিজ্ঞতা থাকা উচিত। কিন্তু এই সিরিজে আমরা তা পাইনি। নিউজিল্যান্ডে এটা পেয়েছিলাম। কিন্তু ঘরের মাঠে এই প্রযুক্তি ব্যবহারের সুযোগটা পেলাম না।’’ মিতালি মনে করছেন, ‘‘ডিআরএসের ব্যবহার অনিয়মিত হলে ক্রিকেটারদের পক্ষেও তার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার কাজটা কঠিন হয়ে যায়।’’