বৃহস্পতিবারের ফিরোজ শাহ কোটলায় দিল্লি বনাম মুম্বই দ্বৈরথে সবার নজর থাকবে বিশেষ এক জন ক্রিকেটারের উপরে। তিনি ঋষভ পন্থ। জাতীয় নির্বাচকেরা বিশ্বকাপের দলে পন্থকে না রাখার পরে দেশজুড়ে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়েছে। যে বিতর্কে জড়িয়েছেন সুনীল গাওস্কর থেকে মাইকেল ভন পর্যন্ত। সেই বিতর্কের মাঝে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে মাঠে নামতে চলেছেন দিল্লি ক্যাপিটালসের পন্থ। দলে সুযোগ না পাওয়া নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি এই উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান। এ বার দেখার, তিনি ব্যাট হাতে কী জবাব দেন। তবে পন্থের কাছে বাধা হয়ে উঠতে পারে কোটলার বাইশ গজ। কোটলার মন্থর পিচে ব্যাটসম্যানরা স্ট্রোক খেলতে সমস্যায় পড়েছেন। দিল্লিরই পৃথ্বী শ বা কোচ রিকি পন্টিং— প্রকাশ্যেই কোটলার পিচ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। পন্টিং তো এও বলেছিলেন, দিল্লির জন্য এর চেয়ে খারাপ পিচ আর কিছু হতে পারে না। 

দিল্লি ক্যাপিটালস এবং মুম্বই ইন্ডিয়ান্স— দুটো দলই আট ম্যাচে ১০ পয়েন্ট পেয়ে প্লে অফের দৌড়ে আছে। বেশ কিছু বছর পরে এই প্রথম প্লে-অফে ওঠার দৌড়ে রয়েছে দিল্লি। নিজের দল নিয়ে দিল্লির ওপেনার শিখর ধওয়ন বলেছেন, ‘‘এই মরসুমটা আমাদের পক্ষে ভালই যাচ্ছে। এই মরসুমে নতুন করে সব কিছু শুরু হয়েছে। নতুন প্রশাসন, নতুন নাম, নতুন সাপোর্ট স্টাফ। সব কিছুই নতুন। আমাদের দলটার ভারসাম্য এ বার 

খুব ভাল।’’ একই সঙ্গে ধওয়ন জানিয়েছেন, পন্টিং এবং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের উপস্থিতি দলের মধ্যে একটা আত্মবিশ্বাস ছড়িয়ে দিয়েছে। মুম্বই ম্যাচের আগের দিন ধওয়ন বলেছেন, ‘‘পন্টিং, সৌরভের অভিজ্ঞতা তো আছেই, পাশাপাশি ওরা দলের মধ্যে একটা বিশ্বাসও এনে দিয়েছে। দলের তরুণ ক্রিকেটারেরাও দ্রুত পরিণত হয়ে উঠছে।’’ দিল্লির বিদেশি পেসাররা এই মরসুমে যথেষ্ট ভাল ফর্মে আছেন। আগের ম্যাচে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে তাঁরা ১১৬ রানে থামিয়ে দিয়েছিলেন। তিন পেসার— কাগিসো রাবাডা, ক্রিস মরিস এবং কিমো পল মিলে বিপক্ষকে শেষ করে দেন। 

দু’দলের শেষ লড়াইয়ে ওয়াংখেড়েতে মুম্বইকে হারিয়ে এসেছিল দিল্লি। ফলে রোহিত শর্মার দলের কাছে এটা একটা প্রতিশোধের ম্যাচ হয়ে দাঁড়িয়েছে। পাশাপাশি এই ম্যাচ যে জিতবে, তারা কিন্তু প্লে-অফে ওঠার দৌড়েও কিছুটা এগিয়ে যাবে। কোটলার পিচ নিয়ে যে উদ্বেগ আছে মুম্বইয়ের, তা পরিষ্কার বেন কাটিংয়ের কথায়। মুম্বইয়ের এই অলরাউন্ডার বুধবার সাংবাদিক বৈঠকে বলেছেন, ‘‘আমাদের লক্ষ্যই থাকবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই পিচের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নেওয়া।’’