• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পৃথ্বীর সঙ্গে লড়াই নেই, গিলের চিন্তা শর্ট বল ও হাওয়া

Gill
মরিয়া: সুযোগ পেলে তা কাজে লাগাতে তৈরি শুভমন। ফাইল চিত্র

নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টে ভারতের হয়ে কোন দু’জন ওপেন করতে নামবেন, তা নিয়ে জল্পনা চলছেই। মায়াঙ্ক আগরওয়ালের সঙ্গী হওয়ার দৌড়ে আছেন পৃথ্বী শ এবং শুভমন গিল। তাঁদের মধ্যে লড়াইটা এখন কোন জায়গায়? শুভমন জানিয়ে দিচ্ছেন, দলে জায়গা পাওয়া নিয়ে পৃথ্বীর সঙ্গে তাঁর কোনও লড়াই নেই। তবে তিনি এও জানাতে ভুলছেন না যে, সুযোগ পেলে তা নষ্ট হতে দেবেন না।

বৃহস্পতিবার হ্যামিল্টনে সাংবাদিকদের শুভমন বলেন, ‘‘আমাদের দু’জনের ক্রিকেট জীবন একসঙ্গে শুরু হলেও নিজেদের মধ্যে কোনও লড়াই নেই।’’ অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায় থেকে একসঙ্গে খেলে চলেছেন দুই ব্যাটসম্যান। যুব বিশ্বকাপে ভারতকে চ্যাম্পিয়ন করার ক্ষেত্রেও এই দুই ব্যাটসম্যানের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল। দু’জনকেই ভবিষ্যতের সম্পদ বলে মনে করা হচ্ছে। এ বার দু’জনের মধ্যে একজনকে সম্ভবত বেছে নেওয়া হবে ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে ওয়েলিংটনে শুরু প্রথম টেস্টে ওপেন করার জন্য। শুভমন বলছেন, ‘‘নিজের নিজের জায়গায় আমরা দু’জনই ভাল খেলেছি। এ বার টিম ম্যানেজমেন্ট ঠিক করবে, কাকে খেলাবে। এমনটা নয় যে আমাদের মধ্যে দারুণ লড়াই চলছে দলে জায়গা পাওয়ার জন্য। যে সুযোগ পাবে সে-ই সুযোগটা কাজে লাগানোর আপ্রাণ চেষ্টা করবে।’’

গত ছ’সপ্তাহ ধরে নিউজ়িল্যান্ডে রয়েছেন শুভমন। ভারতীয় ‘এ’ দলের হয়ে খেলে চলেছেন। ২০ বছর বয়সি এই ব্যাটসম্যান মনে করেন, নিউজ়িল্যান্ড বোলারদের শর্ট বল সামলাতে হবে তাঁদের। আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সের এই ব্যাটসম্যানের কথায়, ‘‘নিউজ়িল্যান্ডের বোলাররা শর্ট বলে অনেক উইকেট পাচ্ছে। বিশেষ করে নিল ওয়াগনার। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শেষ সিরিজটা যদি দেখেন, তা হলে পরিষ্কার হয়ে যায় ব্যাপারটা। যখন পিচ থেকে বোলাররা কোনও সাহায্যই পাচ্ছিল না, তখন অস্ত্র হিসেবে শর্ট বল কাজে লাগাচ্ছিল ওরা। যে ব্যাপারটা আমাদের মাথায় রাখতে হবে।’’ পাশাপাশি আরও একটা ব্যাপারে সতর্ক করে দিতে চান শুভমন। তাঁর কথায়, ‘‘ওয়েলিংটনের হাওয়ার ব্যাপারটা আমাদের মাথায় রাখতে হবে। ‘এ’ দলের হয়ে খেলার সময় দেখেছি, হাওয়ার বিরুদ্ধে পুল বা হুক শট খেলা বেশ কঠিন।’’   

শুভমন শুধু যে ওপেন করে সফল হয়েছেন, তা নয়। মিডল অর্ডারে খেলেও রান পেয়েছেন। শুভমনের মন্তব্য, ‘‘ওপেনিং করাটা আমার কাছে নতুন কিছু নয়। চার নম্বরে নামা মানে দুটো উইকেট পড়ে যাওয়া। তখন চাপটা অন্য রকম থাকে। আর ওপেন করা মানে আপনি দলের জন্য একটা রাস্তা তৈরি করে দিচ্ছেন। ওপেন করলে আমার লক্ষ্য থাকে, শুরুটা এমন ভাবে করা যাতে পরের দিকের ব্যাটসম্যানদের কাজটা সহজ হয়ে যায়।’’ তবে শুভমন এও মনে করেন, নিউজ়িল্যান্ডের চেয়ে ইংল্যান্ডে সুইং সামলানোটা ব্যাটসম্যানের কাছে বেশি কঠিন পরীক্ষা। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন