আগামী সপ্তাহে শুরু হচ্ছে ব্যাডমিন্টন বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপ। ভারতের সেরা তারকা পি ভি সিন্ধুর পাখির চোখ টুর্নামেন্টের সোনায়। তার জন্য তিনি সব চেয়ে জোর দিচ্ছেন ফিটনেস ও রক্ষণের উপরে।

বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সিন্ধুর ধারাবাহিকতা অনেকের থেকে ভাল। কখনও সোনা না জিতলেও তিনি দু’বার করে রুপো ও ব্রোঞ্জ জিতেছেন। ভারতীয় তারকার লক্ষ্য এ বার সোনাটাও জিতে নেওয়া। ১৯ অগস্ট বাসেলে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হচ্ছে। ২০১৭ ও ’১৮-য় তিনি নজ়োমি ওকুহারা এবং ক্যারোলিনা মারিনের কাছে ফাইনালে পরাজিত হন। এ বার সোনা জয়ের সম্ভাবনা কতটা জানতে চাওয়া হলে সংবাদসংস্থাকে সিন্ধুর জবাব, ‘‘কঠোর অনুশীলন করেছি। আশা করছি ভাল করব। শেষ ক’টি টুর্নামেন্টে ভাল খেলেছি। বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপ নিয়ে চাপ নেই।’’

অনুশীলনে কোন কোন জায়গা নিয়ে কাজ করেছেন তাও বলেছেন পুল্লেলা গোপীচন্দের ছাত্রী, ‘‘রক্ষণ আরও মজবুত করা লক্ষ্য। একই সঙ্গে ফিটনেস ও কোর্টের নানা স্কিল নিয়ে কাজ করেছি। আমার হাতে সব ধরনের স্ট্রোক আছে। কিন্তু সেখানে আরও উন্নতি করতে কঠোর অনুশীলন করতে হয়। তাই সব সময় আরও নিখুঁত খেলার চেষ্টা করেছি।’’

সিন্ধু সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘কোন সময়ে কোন স্ট্রোকটা মারতে হবে সেটা বোঝা দরকার। কখনও ক্লান্ত হয়ে পড়তে পারেন। তখন মাথা কাজ করে না। কিন্তু সেটা হলে চলবে না। কঠিন সময়ে মোক্ষম স্ট্রোক মারতেই হবে।’’ জাপান ও ইন্দোনেশিয়ায় শেষ দু’টি টুর্নামেন্টে দারুণ আক্রমণাত্মক খেলে সিন্ধুকে থামিয়ে দেন আকানে ইয়ামাগুচি। বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে সোনা জয়ের পথে এ বারও কি ইয়ামাগুচিই বড় বাধা? রিয়ো অলিম্পিক্সে রুপো পাওয়া তারকার জবাব, ‘‘মনে হয় না, আবার একই ঘটনা ঘটবে। জাকার্তায় কিন্তু ওর বিরুদ্ধে ভালই খেলেছি।’’ সিন্ধু যোগ করেন, ‘‘তবে ও এতটা আক্রমণাত্মক খেলায় অবাক হইনি। আমি তৈরি ছিলাম। ইন্দোনেশিয়ায় প্রথম গেম জিতলে ফল হয়তো অন্য রকম হত।’’

বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে সিন্ধু পঞ্চম বাছাই। প্রথম রাউন্ডে বাই পাচ্ছেন। অভিযান শুরু দ্বিতীয় রাউন্ডে। প্রথম ম্যাচে খেলতে হবে চিনা তাইপেয়ের বাই ইউ পো এবং বুলগেরিয়ার জ়িন্টা জ়েসিরির ম্যাচের বিজয়ীর সঙ্গে। জিতলে সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ বিওয়েন ঝ্যাং। কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলে সিন্ধু বনাম তাই জু ইংয়ের ম্যাচ হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা। সিন্ধু বলেছেন, ‘‘এত বড় টুর্নামেন্টে শুরু থেকেই লড়াই খুব কঠিন। তাই মনঃসংযোগ ধরে রাখাটা জরুরি। একটা-একটা করে ম্যাচ নিয়ে ভাবতে হবে।’’

ডিসেম্বরে ওয়ার্ল্ড ট্যুর ফাইনালসে খেতাব জয়ের পরে সিন্ধু কোথাও চ্যাম্পিয়ন হননি। সিঙ্গাপুর ও ইন্ডিয়া ওপেনে সেমিফাইনালে ছিটকে যান। গত মাসে ইন্দোনেশিয়ায় রুপোয় সন্তুষ্ট থাকতে হয়। সিন্ধু এখন অনুশীলন করছেন নতুন দক্ষিণ কোরীয় কোচ কিম জি-হুনের কাছে। বললেন, ‘‘অভিজ্ঞতাটা দারুণ। কিমের সঙ্গে বোঝাপড়াও তৈরি হয়েছে। আশা করি বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে ভালই ফল করব।’’ নতুন কোচ নিয়ে তাঁর আরও কথা, ‘‘কিম দেখিয়েছেন নেটের কাছে বারবার কী ভুল করছি। এই জায়গায় উন্নতি করতে হবে। এমনিতে ইন্দোনেশিয়ায় খেলার আগে প্রায় এক মাস সময় পেয়েছিলাম। ওই সময়টায় কিমের কাছে দারুণ ভাবে তৈরি হতে পেরে জাকার্তায় ফলও পেয়েছি। উনি অন্য রকম ভাবে আমাকে তৈরি করছেন। দারুণ উদ্বুদ্ধও করেন।’’ টোকিয়ো অলিম্পিক্স নিয়ে কী ভাবছেন জানতে চাওয়া হলে সিন্ধুর জবাব, ‘‘এখনও হাতে অনেক সময় আছে। আপাতত সব টুর্নামেন্টে খেলে যাওয়া জরুরি। পরের বছরের এপ্রিল পর্যন্ত টানা খেলে যেতে চাই।’’